প্রচারের আড়ালে থাকা চট্টগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা

‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও জাতীয় ঐক্য ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে না’

0
.

মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়নে দুর্নীতিবাজ ও নব্য-রাজাকারদের সামাজিকভাবে প্রতিরোধের জন্য ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ও পেশাজীবী নাগরিক সংগঠক রিয়াজ হায়দার চৌধুরী।

তিনি বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত ‘শহীদ মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ উপলক্ষে এক সম্মাননা সমাবেশে এই আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ”সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও জাতীয় ঐক্য ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে না।‌ বাঙালি জাতীয়তাবাদ কেন্দ্রিক মুক্তিযুদ্ধের আদর্শিক ভিত্তিমূলের বিরুদ্ধে যে রকম পাকিস্তানি দালাল রাজাকার আলবদর আলশামসদের তৎপরতা ছিল ঠিক তেমনিভাবে স্বাধীন বাংলাদেশেও এখন উন্নয়ন, প্রগতি ও কল্যাণের পথের বিরুদ্ধে নব্য রাজাকার ও দুর্নীতিবাজদের প্রতাপ রয়েছে। নতুন প্রজন্মকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই।

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য রিয়াজ হায়দার চৌধুরী আরো বলেন, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন কখনোই প্রকৃত বাস্তবায়ন হবে না । আর সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়তে হলে শিক্ষা খাতে আরো বেশি সংস্কার প্রয়োজন। ‘

.

বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র ট্রাস্ট-চট্টগ্রাম ও মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্যোগে এই শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মরণে ‘মুক্তিযুদ্ধে শহীদ দিবস ’ পালিত হয়।

আজ ১৬ জানুয়ারি ঢাকা – চট্টগ্রামসহ কয়েকটি জেলায় মুক্তিযুদ্ধে শহীদ দিবস পালিত হয়।

এই দিবস পালন উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানটির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধকালীন কমান্ডার, ডেপুটি কমান্ডার সহ প্রচারের আড়ালে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের নতুন প্রজন্ম কর্তৃক ফুলেল সম্মাননা জানানো হয়। পরে সবাই শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতিও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে।

অনুষ্ঠানটিতে নতুন প্রজন্মের আদর্শিক সারথি হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান, পেশাজীবী নেতা রিয়াজ হায়দার চৌধুরী বলেন, জাতির পিতার পরে তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ কাজটুকু করে গেছেন।

মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ডাঃ মাহফুজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা নঈম উদ্দিন চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা গবেষক আবু সাঈদ সরদার, ফাহিম উদ্দিন আহমেদ, শহীদ জায়া মুশতারী শফী, মুক্তিযোদ্ধা রাজনীতিবিদ নুরুল আলম মন্টু, মো হারিস আহমদ, অধ্যাপক মো শফিউল বশর, মহসীন খান, আহমদ নাসিরউদ্দিন, দেওয়ান মাকসুদ আহমেদ, ফজল আহমদ, মহিউদ্দিন রাশেদ, আবদুল মান্নান মাস্টার, রেজাউল করিম কুসুম, মো আবু হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম রাজু, অরুন দাস, মনসুরুর রহমান, করিম আবদুল্লাহ, জয়ন্তী লালা, খলিলুল্লাহ সর্দার, স্বপন লালা, মো আবু তাহের, মহিউদ্দিন শাহ আলম নিপু, মিনু রানী দাস, হারুনুর রশিদ ভুইয়া, আনোয়ার খান, মুন্সি মিয়া মো শাহআলম, আবুল কাসেম, হাবিবুল্লাহ বাহার প্রমুখ।

বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা ফাহিমউদ্দিন আহমদ, মহসীন খান, অধ্যাপক মো শফিউল বশর প্রমুখ মুক্তিযোদ্ধা। নতুন প্রজন্ম ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএফইউজে- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সাবেক প্যানেল মেয়র রেখা আলম চৌধুরী,

অধ্যাপক স্বরূপ আনন্দ রায়, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রুবা আহসান, ভাস্কর চৌধুরী, মশিউর রহমান খান, জসিমউদ্দিন মোবারক, শহীদুল্লাহ রিপন, ডা. আর কে রুবেল, রুমানা শফি, ডা. মুনির আজাদ, সুজিত ঘোষ , জয়নুদ্দিন জয়, সুচিত্রা গুহ টুম্পা, ব্যান্ড শিল্পী ইকবাল , রেজাউল করিম, আবদুরল্লাহ মামুন, কাজী রাজেশ ইমরান, মো রফিক, সুর্বণা খান, মুক্তা জামান, নাসিমা, সাইমুন নাহার প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে বঙ্গবন্ধু এই দিনে(১৬ জানুয়ারি,১৯৭২) ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছিলেন।

তিনি, রাষ্ট্রপতি, দল ও সরকারের উর্ধতন কর্মকর্তাদেও নিয়ে তিনি শহীদ মিনারে ফুল দিয়েছিলেন। সরকারি বেসরকারি সব অফিসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়েছিল। দেশ ব্যাপী সকল প্রতিষ্ঠান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই দিবসটি যথাযথ মর্যাদার সাথে পালন করেছিল । পরে অজানা কারণে এই দিবসটি আর পালিত হয়নি। ‘মুজিব বর্ষে’ এসে এই দিবসটি আবার চালু করার দাবি রইলো।

তিনি বলেন, শুধু মাত্র বঙ্গবন্ধু আর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোই যথেষ্ট নয়। বঙ্গবন্ধু ও যোদ্ধাদের স্বপ্নের বাঙলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে রাষ্ট্রের সব স্থরে বাংলা চালু, একমুখী গণমুখী, প্রাথমিক অবৈতনিক বাধ্যতামুলক শিক্ষার প্রচলন, সর্বোচ্চ শিক্ষার মাধ্যম হিসেবে বাংলা ভাষাকে বাধ্যতামুলক করা, দুর্নীতি রোধে জবাবদিহীমুলক প্রশাসন সৃষ্টি, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ সৃষ্টির জন্য কাজ করতে হবে।

শহীদ জায়া মুশতারি শফি বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশে বাংলা ভাষা অবহেলিত হবে এটা মেনে নেয়া যায় না। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকল মুক্তিযোদ্ধাকে এক হয়ে কাজ করার আহবান জানান। খবর- প্রেস বিজ্ঞপ্তির।

কোন মন্তব্য নেই