সীতাকুণ্ডে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু: আটক ৩

0
.

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
সীতাকুণ্ডে শামীমা আকতার শারমিন (৩২) নামের এক গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ঘোড়ামারা এলাকা থেকে পুলিশ গৃহবধূর লাশটি উদ্ধার করে।

এই নারীর পরিবারে দাবী তাকে স্বামী নির্যাতন করে হত্যা করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সীতাকুণ্ড মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মো.সোজায়েত হোসেন।তিনি বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে সুরতহাল রিপোর্টের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছি। লাশের গলায় তিনটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।’ পুলিশ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী মো.সোহেল (৩৮), দেবর মো.রুবেল (২৮) ও শশুর ছালে আহাম্মদ মিয়া (৬৭) কে আটক করেছে।

স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার সোনাইছড়ি ঘোড়ামরা এলাকার মাদকাশক্ত সি.এন.জি ড্রাইভার সোহেল বুধবার গভীর রাতে জুয়া খেলে ঘরে আসে। এরপর ঘরে থাকা স্ত্রী শারমিনের সাথে বৃহস্পতিবার কিস্তির টাকা কিভাবে শোধ করবে এটা নিয়ে ঝগড়া বিবাদ শুরু হয়। ভোরে সোহেলের স্ত্রী‘র খারাপ লাগছে বলে স্থানীয় ডাক্তার ঘরে নিয়ে গেলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর দীর্ঘ সময় লাশটি ঘরে পড়ে থাকে। দুপুরের পর বিষয়টি পুলিশ অবগত হয়ে বিকালে লাশটি উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্টের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন। উদ্ধারকৃত লাশের গলায় তিনটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি মো.ফিরোজ হোসেন মোল্লা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে  পাঠক ডট নিউজকে বলেন, ‘আমারা গৃহবধুর লাশটি উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্টের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছি,গলায় আঘাতের চিহৃ রয়েছে, আমরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী, শশুর ও দেবরকে থানায় নিয়ে আসছি, সুরতহাল রিপোর্ট হাতে আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।”

এব্যাপারে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জহিরুল ইসলাম পাঠক ডট নিউজকে বলেন, আমার ওয়ার্ডে একজন গৃহবধুর লাশ পুলিশ এসে নিয়ে গেছে। তবে কি কারণে তার মৃত্যু হয়েছে তা বুঝতে পারছিনা। পোষ্টমোটেমের রির্পোট আসলে জানা যাবে কারণ। তাদের সংসারে সবসময় ঝগড়া-বিবাদ লেগে থাকতো।

কোন মন্তব্য নেই