“এক জীবন বাঁচানোর গল্প এবং একজন ওয়ারিশ স্যার”: ওসি কোতোয়ালী

0
হাসপাতালে রোগী নিয়ে যাচ্ছে কোতোয়ালী পুলিশ।  (ইনসেটে নগর বিশেষ শাখার উপ কমিশনার আব্দুল ওয়ারিশ)

হালিশহরের আরমান। অসুস্থ সাত দিন ধরে। রোগ শুধুই জ্বর। কিন্তু ডাক্তার তাকে দেখতে রাজি নন! ( তাঁর ভাষায়) তাকে গ্রহণ করেনি হাসপাতালও! তাই সামান্য জ্বরেই শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে আরমান। শেষে আসেন কোতোয়ালী থানায়।

আমরা বারবার বুঝাতে থাকি, এ ব্যাপারে আমাদের করণীয় নেই। কিন্তু তারা নারাজ। এক পর্যায়ে হাউমাউ করে কাঁদতে শুরু করেন ছেলেটির বাবা। অগত্যা ফোন করি নগর বিশেষ শাখার উপ কমিশনার ওয়ারিশ স্যার কে।

পরে স্যার সিভিল সার্জন স্যার ও অন্যান্য মাধ্যমে রাজি করালে অবশেষে ছেলেটিকে দেখতে রাজি হন ডাক্তাররা। তবে রোগী নিতে হবে আমাদের। পরে এস আই আজহার নিজেই সে রোগীকে নিয়ে যায়। রোগীর যাবতীয় পরীক্ষা করায় নিজে দাঁড়িয়েই। ছেলেটি আগের চেয়ে ভাল আছে। বর্তমানে হোম কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে।

মাইকিং কিংবা খাবার বিতরণ করে করোনা যুদ্ধের মহানায়ক সাজার চেষ্টা করলেও আসল নায়ক নীরবে নিভৃতে কাজ করা ওয়ারিশ স্যার ও তার টিমই। আমার সৌজন্যে হয়ত স্যারের এই একটি উদাহরণই জানছেন। কিন্তু স্যার আমাদের ডিপার্টমেন্টের হিরো এসব কাজের জন্যই।

স্যালুট আমার প্রিয় ওয়ারিশ স্যারকে। ধন্যবাদ এস আই আজহার।

লেখক: মোহাম্মদ মহসীন, পিপিএম
অফিসার ইনচার্জ কোতোয়ালী, সিএমপি।

“পাঠকের কলাম” বিভাগের সকল সংবাদ, চিত্র পাঠকের একান্ত নিজস্ব মতামত, এই বিভাগে প্রকাশিত সকল সংবাদ পাঠক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। তাই এ বিভাগে প্রকাশিত কোন সংবাদের জন্য পাঠক.নিউজ কর্তৃপক্ষ কোনো ভাবেই দায়ী নয়।”

কোন মন্তব্য নেই