রমজানে নামাজই সবচাইতে স্বাস্থ্যকর অভ্যাস – ডাঃ শাহাদাত

0
.

এই করোনা দুর্যোগের মাঝেও চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি সভাপতি ও স্পোর্টস মেডিসিন স্পেশালিস্ট ডাঃ শাহাদাত হোসেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকে লাইভে এসে টেলিমেডিসিন সেবার মাধ্যমে জনগণের মধ্যে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এই রমজান মাসেও তার নিজস্ব ফেসবুক পেইজ (https://www.facebook.com/DrShahadatBNP/) থেকে তিনি এই সেবা চালিয়ে যাবেন রবি, মঙ্গল ও বৃহস্পতি বার রাত ১০টা থেক ১১.৩০ পর্যন্ত। সম্প্রতি তিনি লাইভে দর্শকদের করোনার মধ্যে কিভাবে নিরাপদভাবে রোজা পালন করা যায়, এ নিয়ে পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, রোজার সাথে করোনা আক্রান্ত হবার ঝুঁকি নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোন তথ্য পাওয়া যায় নি। তাই সুস্থ স্বাভাবিক ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে রোজা রাখার ব্যাপারে বাধা নেই। তবে, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি রোজা রাখতে চাইলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন। এ ছাড়াও, অন্য রোগ যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, হৃদরোগ ইত্যাদি থাকলে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে রোজা রাখতে হবে।

আর, বাসায় দীর্ঘ সময় থাকার ফলে আমাদের নড়াচড়া কম হচ্ছে তাই ব্যায়াম করার চেষ্টা করবেন। এতে শরীর সুস্থ থাকবে। ব্যায়ামের সাথে সাথে বেশী বেশী নামাজও আদায় করা উচিৎ। এতে কিছুটা শারিরিক ব্যায়ামের সাথে সাথে মানসিক প্রশান্তিও আসবে। উপরন্ত রমজানের মাসের বাড়তি সোয়াবও কামাই হবে। আর নামাজ বেশী পড়লে বারবার অজু করার ফলে পরিষ্কারও থাকা হয়। এটাও করোনা থেকে একধরণের প্রতিরোধ। তাই, এই রমজানে নামাজই হোক আমাদের সবচাইতে স্বাস্থ্যকর অভ্যাস।

তিনি আরও বলেন, নিজেকে পানিশূন্যতা থেকে রক্ষা করতে প্রচুর পরিমানে পানি পান করার অভ্যাস করতে হবে। ইফতার এবং সেহেরিতে পুষ্টিকর খাদ্য খেতে হবে। শাক সবজি ফল সামুদ্রিক মাছ খেতে হবে। অতিরিক্ত চিনি, তেল চর্বি জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। ভাজা-পোড়া খাবারও এভোইড করা উচিত।

যারা ধূমপায়ী, তাদের তামাক জাতীয় দ্রব্য যেমন সিগারেট জর্দা ইত্যাদি থেকে দূরে থাকতে হবে। তামাক কিংবা তামাক জাতীয় দ্রব্যের ব্যবহার ফুসফুস নষ্ট করে যা করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়। এ ছাড়াও, ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে। কিছু সময় পর পর ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধোয়ার কথা ভুলে গেলে চলবেনা।

কোন মন্তব্য নেই