করোনায় মৃত পরিবার ও স্বেচ্ছাসেবকদের জন্য কোতোয়ালী থানার ব্যতিক্রমী ঈদে আয়োজন

0
.

করোনার এই মহামারীতে বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের শত শত স্বেচ্ছাসেবক যে মানবিক দায়িত্ব পালন করে সাধারণ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে তাদের মূল্যায়ন টাকা দিয়ে হয় না। এই মানবিক মানুষগুলো জন্য করোনাকে মোকাবেলা করতে পারছে দেশবাসী তথা রাষ্ট্র।

এবারের ঈদুল আজহাতে এসব স্বেচ্ছাসেবকদের সন্মান জানাতে ব্যতিক্রমী আয়োজন করেছে সিএমপির কোতোয়ালী থানা।

চট্টগ্রামে বিভিন্ন আইসোলেশন সেন্টারে কর্মরত সকল স্বেচ্ছাসেবক, দাফন- দাহ কাজে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবক এবং কোতোয়ালী থানা এলাকায় করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের পরিবারের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করবে তারা। এসব স্বেচ্ছাসেবক এবং মৃত ব্যক্তিদের পরিবারের জন্য আল্লাগর নামে পশু কোরবানি করবে এই থানা। পরে সেই মাংস তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছেও দেয়া হবে।

কোতোয়ালী থানা পুলিশের এই ব্যাতিক্রমী ঈদ পালন প্রসঙ্গে থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘আমাদের স্বজনদের জন্যই স্বেচ্ছাসেবক ভাই বোনেরা আজ পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। বঞ্চিত পরিবারের ঈদ আনন্দ থেকে। আমরা তাদের মাঝে সেই খুশি কিছুটা হলেও দিতে চাই। তাই এই আয়োজন। আমরা গরু মাংসের মেজবানি রান্না করব। পরে তা বিতরণ করা হবে। ‘

.

কোতোয়ালী থানা সূত্রে জানা যায়, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে চট্টগ্রামে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের পরিবার, বিভিন্ন আইসোলেশন সেন্টারে কর্মরত স্বেচ্ছাসেবক, দাফন-দাহ কাজে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবক আল মানাহিল, গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ এর সাথে এবার ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করবে কোতোয়ালী থানা। তারা এই আয়োজনের নাম দিয়েছে’ তাঁদের খুশিতে আনন্দ খুঁজি’। এজন্য একটি গরুও কেনা হয়েছে। ঈদের দিন এই গরু কোরবানি দিয়ে চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবানি মাংস রান্না করে সবার মাঝে বিলি করা হবে। বিশেষ এই আয়োজনকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করা স্বেচ্ছাসেবকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ বলে মন্তব্য করেন ওসি মহসীন।

কোন মন্তব্য নেই