গ্রেনেড হামলা মামলায় খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করার দাবী তথ্যমন্ত্রীর

0
.

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্টের ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা। জিয়াউর রহমান হত্যার রাজনীতি বেছে নিয়েছিলেন, সে পথেই হাটেন খালেদা জিয়া।

খালেদার হুকুমে তারেক রহমানের সরাসরি নির্দেশে ২১ আগস্টের ঘটনা ঘটানো হয়েছিলো। আলোচিত এ মামলার একজন সাক্ষী হিসেবে বলতে চাই, খালেদা জিয়াকে এ মামলায় হুকুমের আসামি করা হোক’।

রোববার (২৩ আগস্ট) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সহধর্মিনী আইভি রহমানের ১৬তম মৃত্যবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। আইভি রহমান পরিষদ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি খুনের রাজনীতির ওপর প্রতিষ্ঠিত একটি দল। জিয়াউর রহমান জাতির পিতাসহ পুরো পরিবারকে হত্যা করতে ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টের ঘটনা ঘটান। দেশবিরোধীদের মূল্যায়ন, বিরোধীমতকে দমন আর চৌকস মেধাবী অফিসারদের হত্যার মাধ্যমে নিজের ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করেন। খালেদা জিয়াও হত্যার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। নিজের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখতে ২১ আগস্টে নিজ পুত্র তারেক রহমানকে দিয়ে শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশে বোমা হামলা চালান।

তিনি বলেন, ‘এ হামলায় খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করা হোক। এটা সময়ের দাবি, জনগণ এ দাবির সঙ্গে একমত, তাকে বিচারের আওতায় আনা হোক। ২১ আগস্টের নীলনকশা আগেই করা ছিল। আমরা মুক্তাঙ্গনে সমাবেশের অনুমতি চেয়েছিলাম দেওয়া হয়নি সেদিন, কারণ সেখানে বোমা হামলা করা যেতো না। বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে অনুমতি দেওয়া হলেও বড় বিল্ডিং এর ছাদে আমাদের নেতাকর্মীদের উঠতে দেওয়া হয়নি। এ হামলার পর প্রতিবাদ জানানো হলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে, কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। সমস্ত আলামত নষ্ট করা হয় সরকারের নির্দেশে’।

আইভি রহমান পরিষদের উপদেষ্টা মো. আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বাবু নির্মল রঞ্জন গুহ, সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আফজালুর রহমান বাবু, ঢাকা নগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফী, সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, সিনিয়র সাংবাদিক মানিক লাল ঘোষ প্রমুখ।

কোন মন্তব্য নেই