চট্টগ্রামে অপচয় রোধে আসছে গ্যাসের প্রিপেইড মিটার

3
screenshot_9
গ্যাসের প্রিপেইড মিটার।

চট্টগ্রাম মহানগরীরতে প্রতিদিন ৬০ হাজার গ্রাহক বাসাবাড়িতে রান্নার কাজে যে পরিমাণ গ্যাস ব্যবহার করেন তার সমান গ্যাস অপচয় করেন। শুধু মাত্র বারবার চুলা জ্বালানোর ঝামেলা আর কাপড় শুকানোর জন্য এই গ্যাস অপচয় হচ্ছে বলে মনে করেন গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানীর কর্মকর্তারা।

আর এই অপচয় রোধ এবং জাতীয় সম্পদ গ্যাস রক্ষায় এবার চট্টগ্রামে প্রিপেইড মিটার বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। আগামী বছরের শুরুর দিকে পর্যায়ক্রমে প্রিপেইড মিটারের আওতায় আনা হবে নগরীর ৬০ হাজার আবাসিক গ্রাহককে। এই পদ্ধতিতে গ্যাস সংকট নিরসনের পাশাপাশি উপকৃত হবে গ্রাহকরা। সরকার ও জাপানি সংস্থা জাইকার অর্থায়নে এই প্রকল্পে ব্যয় হবে ২ শ’ ৪৭ কোটি টাকা।

img_20161108_152428
এভাবে বাসাবাড়িতে অপচয় হচ্ছে গ্যাস।

কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কর্মকর্তাদের মতে রান্না হোক বা নাই হোক বাসাবাড়িতে গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখা মানুষের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। এমনকি গ্যাস পুড়িয়ে কাপড় শুকানোর দৃশ্যও চোখে পড়ে হরহামেশা। ব্যবহার কম বা বেশি যাই হোক  গ্রাহককে মাস শেষে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিতে হয় বলে বাসাবাড়ি থেকে কলকারখানা সব যায়গায় হরদম চলে জাতীয় সম্পদ গ্যাস অপচয়ের মহোৎসব।

এ অবস্থায় গ্যাসের অপচয় ঠেকাতে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি চট্টগ্রাম বসাতে যাচ্ছে গ্যাসের প্রিপেইড মিটার।

screenshot_4
প্রিপেইড মিটারের কার্ড।

তবে গ্রাহকা কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। নগরীর কাজীর দেউড়ি এলাকার গৃহকর্তী মাহমুদা খানম বলেন, প্রিপেইড সিস্টেম হলে আমাদের সচেতনতা বাড়বে। তখন যত টাকা ঢুকানো হবে ততখানি গ্যাস ব্যবহার হবে। এতে গ্যাস খরচ কম হবে বলে জানান তিনি।

কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের প্রকল্প পরিচালক প্রকৗশলী খায়েজ আহম্মদ মজুমদার জানান, প্রিপেইড পদ্ধতিতে নির্দিষ্ট বুথে গিয়ে দেয়া কার্ডটিতে ঢুকাতে হবে টাকা। আর বাড়ির আঙ্গিনায় বসানো মিটারে কার্ডটি  রিচার্জ করলেই টাকার পরিমাণে  পাওয়া যাবে গ্যাস। তিনি সাংবাদিকদের আরো বলেন, মিটার ইনস্টলেশনের সঙ্গে সঙ্গে একটি কার্ড দেয়া হবে। কার্ড রিচার্জ করলে গ্যাস পাওয়া যাবে।

screenshot_10
.

এদিকে এই পদ্ধতি গ্রাহক বান্ধব উল্লেখ করে এর নানা সুবিধার কথা জানালেন প্রকৗশলী খায়েজ আহম্মদ মজুমদার। তিনি আরো বলেন, প্রায় ছয় লক্ষ আবাসিক গ্রাহক রয়েছে। সবাইকে মিটার সিস্টেমে আনতে পারলে গ্যাস খরচ অনেক কমে যাবে বলে মনে করেন তিনি।

চট্টগ্রামে আবাসিক বাণিজ্যিক মিলে গ্রাহক সংখ্যা ৬ লাখ। প্রাথমিকভাবে আগামী বছরের শুরুতে নাসিরাবাদ ও খূলশী আবাসিক এলাকায় বসানো হবে তিন হাজার গ্যাসের প্রিপেইড মিটার। পর্যায়ক্রমে চাঁন্দগাও, খুলশী ও চকবাজারসহ পুরো নগরীর গ্রাহকরা এই সেবার আওতায় আসবে। সুত্র: সময় টিভি

3 মন্তব্য