বাঁশবাড়িয়া বীচে বেড়াতে আসা পর্যটকদের সাথে সংঘর্ষে আহত ১৫

0
.

সীতাকুণ্ডে বাঁশবাড়িয়ার বীচে বেড়াতে আসা পর্যটক ও স্থানীয়দের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় ফেনী থেকে সীতাকুণ্ডে বেড়াতে আসা একদল পর্যটক ১৭টি মোটরসাইকেল ও উপজেলার বাঁশবাড়িয়া সমুদ্র সৈকতে বেড়িয়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে ফিরে যাবার সময় বাঁশবাড়িয়া বাজারে যানজটে আটকা পড়ে। এ সময় উক্ত যুবকরা যানজট নিয়ে তর্কাতর্কির পর্যায়ে স্থানীয় এক সিএনজি অটোরিকশা চালককে মারধর করে। এ সময় বাধা দিতে আরো কয়েকজন সিএনজি চালক নুরউদ্দিনকে মারধর করে।

এসময় বাজারের সভাপতি তসলিম এগিয়ে গিয়ে ঘটনা মিমাংসা করার চেষ্টা করলে তাকেও মারধর করা হয়। এতে স্থানীয়রা ক্ষিপ্ত হয়ে পর্যটকদের ধাওয়া দিয়ে পিটুনি দিলে ফেনীর বাসিন্দা পর্যটক রাকীব আহমেদ তাহা (৩২), দেলোয়ার হোসেন (৩০), মোন (২০), খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান (৩৫)সহ আহত ৭/৮ জন আহত হয়ে সীতাকুণ্ড উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেয়। এর মধ্যে দুজনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হলে স্বজনরা তাদেরকে ফেনী হাসপাতালে নিয়ে যায়।

বাঁশবাড়িয়ার ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. শওকত আলী জাহাঙ্গীর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উক্ত যুবকরা ফেনী থেকে এসে বাঁশবাড়িয়া সাগর পাড়ে বেড়াতে যায়। বেড়ানো শেষে ফেরার পথে বাজারে যানজটের সৃষ্টি হলে তর্কাতর্কি করে এক ট্যাক্সি চালককে মারধর করে। ঘটনা দেখে বাজারের সভাপতি তসলিম মীমাংসা করতে গেলে তাকেসহ আরো কয়েকজনকে মারধর করে তারা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয়রা কয়েকজন মারধর করে বলে শুনেছি।

সীতাকুণ্ড থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, পর্যটকরাই স্থানীয় সিএনজি চালক ও বাজার কমিটির সভাপতিকে মারধর করে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে বলে আমরা প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছি। পরে অবশ্য দুই পক্ষ সমস্যাটি সমাধান করে ভুল বোঝাবুঝির অবসান করে।

কোন মন্তব্য নেই