কদমতলীতে করদাতা সুরক্ষা পরিষদের

চসিক’র হোল্ডিং টেক্সের নামে ১৭% ইনকাম টেক্স আদায়ের পরিকল্পনায় প্রত্যাহার দাবী

1
.
.

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক নগরবাসীদের ভাড়া ঘরের উপর ১৭% হোল্ডিং টেক্স আদায়ের অযৌক্তিক, অন্যায্য ও একচ্ছত্র সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও ধায্যকৃত হোল্ডিং টেক্সের নামে ইনকাম টেক্স আদায়ের কার্যক্রম প্রত্যাহারের দাবীতে এক গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদের উদ্যোগে কদমতলীস্থ বাইশ মহল্লার প্রাক্তন সর্দার মরহুম আবুল খায়ের মেম্বারের মাকের্ট চত্বরে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে মহানগরীর ৪১টি ওয়ার্ড থেকে আগত হাজারো অধিক মানুষের উপস্থিত ছিল।

সুরক্ষা পরিষদের আহ্বায়ক হাকিম মুহাম্মদ উল্লাহর সভাপতিত্বে গণসমাবেশে বক্তব্য রাখেন মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর চৌধুরী সি এন সি, সুরক্ষা পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল আবছার, হাজী মোহাম্মদ জাফর, চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মহাসচিব-মো. কামাল উদ্দিন, সর্দার জহিরুল হক।

????????????????????????????????????
.

হাজী মনির আহমদ-এর সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন  সিদ্দিকুল ইসলাম, আলহাজ্ব শামশুল আলম দুলাল, শওকত হোসেন মিঠু, আব্দুল রহিম চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলার জান্নাতু ফেরদৌস পপি, মো. ইলিয়াস, নুরুল ইসলাম নুরু, বখতিয়ার, নুর মোহাম্মদ,শহীদুল ইসলাম বাবুল, জানে আলম, জামাল আহমেদ, হাজী সোলেমান, হাজী মুরাদ, কোরআন তেলোয়াত করেন বাবুল। এছাড়াও  প্রতিটি ওয়ার্ড ও মহল্লা থেকে আগত প্রতিনিধিগণ মতামত প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন।

বক্তাগণ বলেন, চট্টগ্রাম শহরের বসবাসকারীদের উপর অন্যায়ভাবে টেক্স ধায্য করে অতীতে কোন মেয়র টেক্স আদায় করতে পারে নাই। আমরা চট্টগ্রামবাসী দল-মত-নির্বিশেষে আজকের এ গণসমাবেশে একত্রিত হয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন হোল্ডিং টেক্সের নামে ১৭% ইনকাম টেক্স আদায় করার পরিকল্পনার তীব্র  ক্ষোভের সাথে প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের এ সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবীতে আগামী এক মাসের মধ্যে  প্রতিটি ওয়ার্ড মহল্লায় কমিটি গঠনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম সিটি গেইট থেকে কালুঘাট পর্যন্ত মানব প্রাচীর মূলক মানববন্ধন করাসহ গণ অনশন এবং প্রতিটি এলাকায় এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশ ও গণ স্বাক্ষর কর্মসূচী পালন পূর্বক লালদীঘির ময়দানে বৃহত্তম জন সমাবেশ ও মেয়রকে স্মারক লিপি প্রদানের মাধ্যমে আমাদের এ ন্যায দাবী আদায় করে নিবো।