মাছ কাদের গ্রুপের গুলিতে বাহাদুর সমর্থক নিহত

পোষ্টার ছেঁড়ার প্রতিশোধ নিল গুলি চালিয়ে হত্যা করে (ভিডিও)

0
.

গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে পাঠানটুলি ওয়ার্ডের মতিয়ারপোল এলাকায় গণসংযোগ করছিলেন ২৮নং পাঠানটুলি ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম বাহাদুর।  ঠিক রাত ৮টা ৪৫ মিনিটের দিকে তিনি সমর্থকদের নিয়ে মতিয়ারপোল আবেদিয়া স্কুলের পাশে দোকাননে এবং পথচারীদের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছিলেন নজরুল ইসলাম বাহাদুর।  এ সময় তার এক সমর্থককে দেখা যায় গলি মধ্যে প্রবেশ করে রাস্তার উপর আড়াআড়িভাবে ঝুলানো প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী আব্দুল কাদের প্রকাশ মাছ কাদেরর ছবি ও প্রতিক সম্বলিত পোষ্টার টেনে টেনে ছিঁড়ে ফেলছে।  রাস্তার পাশে দ্বিতল একটি মার্কেটের উপরে থাকা সিসি ক্যামেরায় এ দৃশ্য ধরা পড়ে।

এ পোষ্টার ছেঁড়ার ২৪ ঘন্টার মাথায় মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় মাছ কাদের গ্রুপের গুলিণতে নিহত হন কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম বাহাদুরের সমর্থক আওয়ামী লীগ কর্মী ও এলাকার সর্দার আজগর আলী বাবুল প্রকাশ বাবুল সর্দার (৫২)।

মাছ কাদের ও নজরুল ইসলাম বাহাদুর।

জানাগেছে, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে আওয়ামী লীগ মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুর ও বিদ্রোহী প্রার্থী মাছ কাদেরের বিরুদ্ধে উত্তেজনা চলছিল।  সোমবার রাতে পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে মাছ কাদের গ্রুপের সমর্থকরা।  এনিয়ে দুপুরে সিইসির বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন মাছ কাদের। আর রাতে প্রকাশ্যে গুলি চালিয়ে একজনকে হত্যা অন্য একজনকে আহত করে পোষ্টার ছেঁড়ার প্রতিশোধ নিয়েছে মাছ কাদেরের সমর্থকরা।

নিহত আজগর আলী বাবুল প্রকাশ বাবুল সর্দার (৫২) তিনি ২৮ নম্বর পাঠানটুলি ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত নজির আহমদের ছেলে। এবং আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম বাহাদুরের সমর্থক।

মঙ্গলবার (১২জানুয়ারী) মহানগরীর ডবলমুরিং থানার পাঠানটুলী ওয়ার্ডর কাপুড়িযা পাড়ায় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধবস্থায় নগরীর ন্যাশনাল হাসপাতালে নেয়ার পথে বাবুল সর্দারের মৃত্যু হয় বলে প্রতক্ষ্যদশীরা জানান।

সিএমপির ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সদীপ কুমার দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করে পাঠক ডট নিউজকে বলেন নির্বাচনের পোষ্টার ছেঁড়াকে কেন্দ্র করে এক গ্রুপের গুলিতে অপর গ্রুপের একজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ যুবলীগ কর্মী মাহবুবকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নজরুল ইসলাম বাহাদুর বলেন, রাতে গণসংযোগকালে পাঠানটুলির মগপুকুর এলাকায় বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল কাদেরের অনুসারীরা সশস্ত্র হামলা চালায়।  এসময় গুলি করে স্থানীয় মহল্লার সর্দার বাবুলকে হত্যা করেছে।  আমাকে বাঁচাতে গিয়ে এসময় যুবলীগ কর্মী মাহবুবও গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কাদের গ্রুপের সমর্থকরা অভিযোগ করেন-গতকাল সোমবার রাতে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম বাহাদুর মতিয়ার পুল থেকে কদমতলী পর্যন্ত গণসংযোগ করাকালে তার উপস্থিতিতে তার সমর্থিত কর্মী মোস্তফা কামাল টিপু, মাহবুব কামাল, সাহেদ, জাবেদ, ফয়সাল,দেলোয়ার বেশ কয়েকজন আমাদের সব পোষ্টার প্রকাশ্যে ছিঁড়ে ফেলে। এ ব্যাপারে আজ নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল কাদের বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে আমি কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে আবু শাহ মাজার এলাকায় গণসংযোগ করছিলাম। বাহাদুরের সমর্থকরা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমার সমর্থ কদের ধাওয়া করে। এসময় গুলিতে একজন মারা গেছে শুনেছি।

কোন মন্তব্য নেই