মন্দিরে তরুণীকে ধর্ষণ করতে গিয়ে গণধোলাই খেল পুরোহিত

0
.

সিলেটের গোলাপগঞ্জের বাঘায় মন্দিরে এক তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক পুরোহিতের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ওই পুরোহিতকে গণধোলাই দিয়ে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার বাঘা কালাকোনা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য এক তরুণী ওই পুরোহিতের কাছে গেলে তাকে ধর্ষণচেষ্টা করা হয় বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের কালাকোনা গ্রামে শ্রী শ্রী গিরিধারী জিও মন্দিরের পুরোহিত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন প্রাণ গবিন্দ দাস বাবাজি ওরফে ফরেস্ট চৌহান (৪৬)। তিনি টাঙ্গাইলের দেলদোহার থানার সিলিমপুর গ্রামের কালু চৌহানের ছেলে।

ধর্মীয় শিক্ষা লাভের জন্য ওই পুরোহিতের কাছে প্রায়ই যাওয়া আসা করতেন এলাকার তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সী হিন্দু ধর্মের অনুসারীরা। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় এক তরুণী অন্যান্য সময়ের মতো তার কাছে গেলে পুরোহিত গবিন্দ দাস তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। পরে তরুণীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করেন।

পরে পুরোহিত গবিন্দ দাস বাবাজি ওরফে ফরেস্ট চৌহানকে এলাকাবাসী ধরে গণধোলাই দিলে তরুণীকে ধর্ষণচেষ্টার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন। এ সময় পুরোহিতের সহযোগী দিপংকর দেব তপন পালিয়ে যান। এ ঘটনায় গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হারুনূর রশীদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গোবিন্দ নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অপরজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

কোন মন্তব্য নেই