চট্টগ্রামে এসেছে সিনোফার্মের ৯১ হাজার ২’শ ডোজ কোভিড ভ্যাকসিন

0
.

চট্টগ্রামে তৃতীয় দফায় এসেছে চীনের তৈরী করোনাভাইরাস প্রতিষেধক সিনোফার্মের ৯১ হাজার ২’শ ডোজ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন। প্রতি ভায়াল ভ্যাকসিন মাত্র ১ জনকে প্রয়োগ করা যাবে। সিনোফার্মের এ টিকা প্রথম ডোজ হিসেবে দেয়া হবে। ১ম ডোজ টিকা গ্রহীতাদের এক মাসের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিন দেয়া হবে।

আজ ১৮ জুন শুক্রবার বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ফ্রিজার ভ্যানে করে আসা প্রতি কার্টনে ৬’শ ভায়াল করে ১৫২টি কার্টন ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।

এরপর ভ্যাকসিনগুলো সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই স্টোরে ওয়াক-ইন-কুলারে (ডবিøউআইসি) ২ থেকে ৮ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা হয়।

এসময় ভ্যাকসিন গ্রহণ কমিটি সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপারের পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) মোঃ জাহাংগীর, জেলা প্রশাসকের পক্ষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমান, ওষুধ প্রশাসনের সহকারী পরিচালক হোসাইন মোহাম্মদ ইমরান, জেলা ইপিআই সুপারিনটেনডেন্ট মোঃ হামিদ আলী ও কোল্ড চেইন টেকনিশিয়ান মোঃ জাফর উল্লাহ। ভ্যাকসিন তদারকিতে ছিলেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওসিএস ডা. মোহাম্মদ ওয়াজেদ চৌধুরী অভি, এমওডিসি ডা. মোঃ নুরুল হায়দার, জেলা স্বাস্থ্য তত্বাবধায়ক সুজন বড়ুয়া, জেলা ইপিআই টেকনোলজিস্ট কাজল কান্তি পাল ও বেক্সিমকো’র সিনিয়র স্টোর ম্যানেজার মোহাম্মদ মহসীন।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে চট্টগ্রামের জন্য তৃতীয় দফায় চীনের তৈরী সিনো ফার্মের ৯১ হাজার ২’শ ডোজ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন আমরা পেয়েছি। সরকারের নির্দেশনা পেলে আগামীকাল শনিবার বা এর পরের দিন রোববার থেকে ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম শুরু হতে পারে। এবার রাজধানী ঢাকা বাদে প্রত্যেক জেলায় ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য কেবল একটি মাত্র কেন্দ্র থাকবে। যে জেলায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রয়েছে সেখানে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, যে জেলায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নেই সেখানে সদর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এ টিকা দেয়া হবে। চট্টগ্রামের জন্য শুধুমাত্র চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল কেন্দ্রে এ টিকা দেয়া হবে। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পেতে চমেক’র অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. গাহেনা আক্তারের সাথে যোগাযোগ করা যেতে পারে।
তিনি আরো বলেন, সিনোফার্মের এ টিকা প্রথম ডোজ হিসেবে দেয়া হবে। ১ম ডোজ টিকা গ্রহীতাদের এক মাসের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে। এবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন বা জেলার জন্য আলাদা কোন বরাদ্ধ নেই। করোনার সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবে ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী, পুলিশ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, গণমাধ্যমকর্মী, চীনা নাগরিক, বিদেশগামী, বিভিন্ন প্রকল্পে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, পরিচ্ছন্ন কর্মী, মুর্দা গোসলকারী, লাশ দাফনের কাজে নিয়োজিত ব্যক্তি যারা রেজিস্ট্রেশন করে এখনো টিকা নিতে পারেননি তাদেরকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এ টিকার প্রথম ডোজ প্রয়োগ করা হবে। সরকারী-বেসরকারী মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী, সরকারী নার্সিং কলেজ, আইএইচটি, মিডওয়াইফারী ও ম্যাটস্ এর শিক্ষার্থীরা তাদের প্রতিষ্ঠানের আইডি কার্ড দিয়ে নির্ধারিত ফরমে রেজিস্ট্রেশন সাপেক্ষে এ টিকা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই শাখায় প্রাপ্ত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন খুব সাবধানতার সাথে ওয়াক-ইন-কুলারে (ডবিøউআইসি) সংরক্ষণ করা রয়েছে।

উল্লেখ্য যে, গত ৩১ জানুয়ারী ১ম দয়ায় অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরী ৪ লাখ ৫৬ হাজার ডোজ করোনার টিকা চট্টগ্রামে আসে। পওে গত ৯ এপ্রিল দ্বিতীয় দফায় আরও ৩ লাখ ৬ হাজার ডোজ টিকা আসে এবং ৭ ফেব্রæয়ারী থেকে টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়।

কোন মন্তব্য নেই