রাখে আল্লাহ মারে কে !

0

Babyথাইল্যান্ডে খনকয়েন প্রদেশে অমানবিক নির্যাতনের পরও বেঁচে আছে এক শিশু। ২০ সেন্টিমিটার গর্তে কবর দেওয়ার পর তাকে জীবিত উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা।

ব্রিটেনের ডেইলি মিররের খবরে বলা হয়, শিশুটিকে উদ্ধার করার সময় শরীরে ১৪ বার ছুরিকাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে ঘটলে সাম্প্রতিক সময়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে উঠে এসেছে।

কাচিত রোঙইয়াত (৫৩) নামে স্থানীয় এক নারী পশুপালক তার গরুগুলো ঘরে আনার সময় মাটির নিচে গোঙানির শব্দ পান। সেখানে গর্তের ভেতর ছোট ছোট দুটো পা দেখেই চমকে উঠেন কাচিত। এরপরই শুরু হয় খোড়াখুঁড়ি। উদ্ধার করা হয় প্রায় অর্ধমৃত ওই শিশুকে। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। এরপর ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠে শিশুটি।

স্থানীয় গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘প্রথমে ভেবেছিলাম কেউ হয়তো কারও পোষ্য প্রাণিকে কবর দিয়ে গেছে। কিন্তু এরপরই মানুষের পা দেখি। আমি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করি এবং উদ্ধারের জন্য সবাইকে ডাকি।

থাইল্যান্ডে গর্ভপাত নিষিদ্ধ হলেও অহরহ তা হয়েই থাকে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় এই দেশেই কৈশোরে গর্ভধারণের হার সবচেয়ে বেশি।

২০১১ সালে থাইল্যান্ডের একটি বৌদ্ধ মন্দিরের কাছে ২ হাজার অবৈধ গর্ভপাত করা শিশুদেহ লুকিয়ে ফেলার চেষ্টার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে ৪০ মাসের কারাদণ্ড দেয় দেশটির আদালত।

সুত্র: বিদেশী পত্রিকা থেকে

Advertisements

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন