দেশে করোনায় আরো ৫১ মৃত্যু

0
.
.

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বেড়েছে, তবে কমেছে শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫১ জন, যা কিনা মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ছিল ৩৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৯০১ জন। এর আগে মঙ্গলবার দুই হাজার ৭৪ জনের শনাক্ত হবার খবর জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৫১ জনকে নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সরকারি হিসেবে মারা গেলেন ২৭ হাজার ৫৮ জন। আর নতুন শনাক্ত হওয়া এক হাজার ৯০১ জনকে নিয়ে সরকারি হিসেবে করোনাতে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ১৫ লাখ ৩৬ হাজার ৩৪১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন তিন হাজার ৮৭৩ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট সুস্থ হলেন ১৪ লাখ ৯০ হাজার ৫৪১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাতে রোগী শনাক্তে হার ছয় দশমিক ৬৪ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক শূন্য দুই শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৭৬ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২৮ হাজার ৫৪৪টি আর নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৮ হাজার ৬১৫টি।

দেশে এখন পর্যন্ত মোট ৯৩ লাখ ৩২ হাজার ৪৬০টি করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৬৮ লাখ ৯৪ হাজার ৩২৫ টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ২৪ লাখ ৩৮ হাজার ১৩৫টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৫১ জনের মধ্যে পুরুষ ৩২ জন আর নারী ১৯ জন। অধিদফতর জানাচ্ছে, দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত পুরুষ মারা গেলেন ১৭ হাজার ৪৩৬ জন আর নারী মারা গেলেন নয় হাজার ৬২২ জন।

২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে বয়স বিবেচনায় ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে আছেন দুজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১৮ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৫ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুইজন আর ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছে একজন।

মৃত ৫১ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জন, রাজশাহী বিভাগের চারজন, খুলনা ও সিলেট বিভাগের পাঁচজন করে আর বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগের আছেন তিনজন করে। তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ৪৪ জন আর বেসরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন সাতজন।

কোন মন্তব্য নেই