বিএনপির ৪ নেতা আটক

আজ বি-বাড়িয়ায় বিএনপির সমাবেশ, ছাত্রলীগের পাল্টা সমাবেশের কারণে ১৪৪ ধারা

0
.

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আজ শনিবার একই স্থানে বিএনপি ও ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ আহবানকে কেন্দ্র করে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। এর আগে জেলা বিএনপির শীর্ষ চার নেতাকে আটক করেছে পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. রুহুল আমীন ১৪৪ ধারা জারির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপি ও জেলা ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি সমাবেশকে কেন্দ্র করে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির আশঙ্কায় শনিবার ভোর ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত জেলা শহরের ফুলবাড়িয়া এলাকাসহ পৌর এলাকার সব জায়গায় ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকবে।

জানা যায়, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ফুলবাড়িয়া কনভেনশন সেন্টার প্রাঙ্গণে শনিবার দুপুর ২টায় সমাবেশ আহ্বান করে স্থানীয় বিএনপি। তবে সমাবেশ নিয়ে কোনো অনুমতি ছিল না। এদিকে একই স্থানে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশ আহ্বান করে জেলা ছাত্রলীগ। এতে এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরিস্থিতি বিবেচনায় ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

এদিকে সমাবেশের আগের দিন শুক্রবার দুপুরে জেলা বিএনপির শীর্ষ চার নেতাকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ। আটককৃত বিএনপি নেতারা হলেন- জেলা বিএনপির আহবায়ক মো. জিল্লুর রহমান, সদস্য মো. জহিরুল হক খোকন, মো. সিরাজুল ইসলাম ও পৌর বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, চারজনকে পুলিশ হেফাজতে রাখার বিষয়টি শুনেছেন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানবেন তিনি।

বিএনপির অভিযোগ, সমাবেশ বানচাল করতে তাদের চার নেতাকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে।

কেন্দ্রীয় বিএনপির প্রেস বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সমাবেশে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রধান অতিথি থাকার কথা ছিল। ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া, উকিল আব্দুস সাত্তার ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামলসহ কেন্দ্রীয় বিএনপির শীর্ষ নেতাদেরও উপস্থিত থাকার কথা। সমাবেশ সফল করতে কয়েক দিন ধরে প্রচারণাও চালিয়েছে জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

যোগাযোগ করা হলে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান সদস্য মো. হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি জানান, তাদের চারজন নেতাকে ধরে নিয়ে গেছে পুলিশ। তাদের কোথায় নিয়ে রাখা হয়েছে সেটা তারা এখনো জানতে পারেননি।

কোন মন্তব্য নেই