হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়ানো হলে চসিক ভবন ঘেরাও করা হবে: ডা.শাহাদাত

0
.

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র আহবায়ক ডা.শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বর্তমান চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলেই আবারো নগরবাসীর হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়ানোর পায়তারা করছে। জনগণের বিরুদ্ধে গিয়ে যদি হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়ানো হয় তাহলে চট্টগ্রামবাসীকে সাথে নিয়ে সিটি কর্পোরেশন ভবন ঘেরাও করা হবে বলে হুশিয়ারী দিয়েছেন এ বিএনপি নেতা।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি),বিকালে বন্দর ইস্ট কলোনি নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলুর পরিবারের খোঁজ নিতে গেলে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত হোসেন আরো বলেন, বর্তমানে বাজারে অযৌক্তিকভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। প্রতিদিন পণ্যের দাম বাড়ছে। গরীব, মধ্যবিত্ত, খেটে খাওয়া মানুষের জীবনে আজ নাভিশ্বাস ওঠেছে। এর উপরে যদি হোল্ডিং ট্যাক্স বাড়ানো হয় তাহলে নগরবাসীর দুর্ভোগ আরো বেড়ে যাবে। বাজারে মুনাফাখোর সরকারের এই সিন্ডিকেট মানুষের জীবনের সুখশান্তি, রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে। অথচ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে সরকারের দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেই। তারা আছে উন্নয়নের ফাঁকা বুলি নিয়ে। উন্নয়নের নামে সরকারের নেতাকর্মীরাই শুধু পকেট ভারি করছে। চট্টগ্রামবাসীর কল্যাণে তারা কোনো কাজ করছে না। নগরবাসী নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

ডা. শাহাদাত হোসেন আরো বলেন, এমনিতেই অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও সমন্বয়হীনতার কারণে ক্রমান্বয়ে চট্টগ্রাম নগরী ভারসাম্যহীন হয়ে উঠেছে। চট্টগ্রামে হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। কিন্তু দুর্নীতি ও সমন্বিত পরিকল্পনার অভাবে এসব উন্নয়ন প্রকল্পগুলো আরো দুর্ভোগ তৈরি করছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই চট্টগ্রাম পানিতে তলিয়ে যায়। উন্মুক্ত খালে পড়ে মানুষ মারা যায়।

তিনি বলেন, সমন্বিত রূপরেখা ছাড়া কোনো নগরী পরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠে না। জনগণের অর্থ খরচ করে মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন করা হয়েছে। যদি মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলা না যায় তাহলে নগরীর মান আরো খারাপ হয়ে যাবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বন্দর থানা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ ওসমান, ৩৭ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হাসান, বিএনপি নেতা শহীদুল আলম আর্জু, শাহাবুদ্দিন শাবু, চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সভাপতি আসাদুজ্জান দিদার,শহীদুল্লাহ বাহার,সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া,যুগ্ম-সম্পাদক জমির উদ্দিন নাহিদ, সিরাজুল ইসলাম ভূইয়া, বিএনপি নেতা মোহাম্মদ ফারুক, মোহাম্মদ ইউসুফ, মোহাম্মদ আরিফ,নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম নয়ন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন রুবেল, সহ শ্রম বিষয়ক সম্পাদক বাকের হোসেন,সহ সংস্কৃতির বিষয় সম্পাদক শরীফুল ইসলাম রানা, পাঁশলাইশ থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক মো: শফিউল আলম শফি বন্দর থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক রিয়াজ উদ্দীন রাজু, ডবল মুরিং স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা জাহাঙ্গীর আলম, শাহেদ প্রমূখ।

কোন মন্তব্য নেই