মীরসরাই ট্রেজেডি: আয়াতের পর এবার চলে গেলেন তাসমির হাসান

0
তাসমির হাসান

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
মীরসরাই রেল ও মাইক্রোবাস দুর্ঘটনায় ১১ জন নিহতের পর এবার পরিবার ও স্বজনদের শোকের সাগরে ভাসিয়ে চলে গেলেন দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত তাসমির হাসান (১৬)। এর আগে গতকাল শুক্রবার মারা যান আয়াতুল ইসলাম আয়াত।

আজ শনিবার রাত পৌণে দশটার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা তাসমির হাসান। মৃত্যুর সংবাদটি নিশ্চিত করেছেন আইসিইউর চিকিৎসক ডা. হারুণ অর রশিদ।তিনি বলেন, প্রথম থেকেই তাসফিরের অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। তার মাথা আঘাত ছিল এবং ঘাড় ভেঙে যায়। বলতে গেলে পুরো শরীর প্রায় অবস হয়ে যায়। গত ৩১ জুলাই তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়। আজ রাত ৯ টা ৫০ মিনিটে অফিসিয়ালি তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে।

নিহত তাসমির হাসানের চাচা মোঃ টিপু জানান, আইনগত প্রক্রিয়া শেষে বাড়ি নিয়ে জানাজা ও দাফন করা হবে। আগামীকাল রবিবার খন্দকিয়া ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।

জানা গেছে, দুর্ঘটনার পর থেকেই চমেক হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিল তাসমির হাসান। সে চিকনদন্ডী আমানবাজার এলাকার আব্দুল আজিজ সাব রেজিস্টার বাড়ির মৃত মোঃ পারভেজের পুত্র এবং কে এস নজুমিয়াহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। তাছাড়া সে একই দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে নিহত মাইক্রোবাস চালক গোলাম মোস্তফা নিরুর ভাতিজা।

উল্লেখ্য ২৯ জুলাই মিরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণা উপভোগ করে ফেরার পথে চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাস চালকসহ ১১ যুবক ঘটনাস্থলে নিহত হন। শুক্রবার দুপুর দুইটায় চমেক হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় মারা যায় আয়াত। এ নিয়ে মীরসরাইয়ের দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা দাড়াল ১৩ জনে।

হতাহতরা সবাই হাটহাজারীর বাসিন্দা এবং যুগিরহাট বাজার আর এন্ড জে নামক একটি কোচিং সেন্টারের শিক্ষক ও শিক্ষার্থী।

কোন মন্তব্য নেই