বইমেলায় মোস্তফা মনোয়ার-এর প্রথম উপন্যাস “বদলে যাবার আগে”

0
লেখক।

অমর একুশে বইমেলা-২০১৭ তে এসেছে তরুণ লেখক মোস্তফা মনোয়ার-এর প্রথম উপন্যাস “বদলে যাবার আগে”। এটি তার প্রথম উপন্যাস হলেও প্রথম বই নয়।

গত বছরের বইমেলায় প্রকাশিত হয় তার প্রথম বই “গণিতের হাত-পা ও রুবিক্স কিউব”। যার মোড়ক উন্মোচন করেন ড.মুহম্মদ জাফর ইকবাল। মোড়ক উন্মোচনের এসে তিনি বলেন “মোস্তফা মনোয়ার নিজে কঠিন কাজটি করে আমার জন্যে সহজ কাজটি রেখে দিয়েছে, আমি তার দ্বিতীয় বইয়ের অপেক্ষায় রইলাম”।

.

মোস্তফা মনোয়ার-এর দ্বিতীয় বই “বদলে যাবার আগে”। প্রথম বইটি বেশ পাঠক প্রিয়তা পায় তার গত বইমেলায়। এবং এই বইমেলায় “বদলে যাবার আগে” ও বেশ একটা জায়গা দখল করে নিয়েছে পাঠক মহলের কাছে।

১১ই ফেব্রুয়ারী বিকেল চারটায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে এই বইটিরও মোড়ক উন্মোচন করেন ড.মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

মোস্তফা মনোয়ার রম্য লিখেন, লিখেন বিজ্ঞান নিয়ে। প্রথম আলোর রস+আলো-এর একজন কন্ট্রিবিউটর তিনি। এ ছাড়া বাংলাদেশ সায়েন্স ফিকশান সোসাইটির ত্রৈমাসিক ম্যাগাজিন “বিজ্ঞান আনন্দ”-এর সহ-সম্পাদক ও একজন নিয়মিত লেখক।

চট্টগ্রামের ছেলে মোস্তফা মনোয়ারের পড়ালেখা চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল ও চট্টগ্রাম কলেজে। বর্তমানে প্রকৌশলী হবার আশায় পড়ছেন বুয়েট-এ যন্ত্রকৌশলে তৃতীয় বর্ষে।

ড.মুহম্মদ জাফর ইকবালের হাতে “বদলে যাবার আগে”

নিজের বই সর্ম্পকে লেখক বলেন- “’বদলে যাবার আগে‘ এবারের বইমেলায়, আমার প্রথম উপন্যাস। প্রথম উপন্যাস নিয়ে সবার আবেগ থাকবেই কম বেশি, আমারও আছে। জানিনা কেমন লিখেছি, চেষ্টা করেছি গত ৬-৭ মাস লিখার।

আমাদের জীবনের কাহিনী নিয়েই উপন্যাসটা, আমি কেমন ছিলাম, আপনি কেমন ছিলেন তা নিয়েই। এই ভার্সিটিতে আসার পর মানে এই বয়সটাতে এসে হুট করে কেমন যেন একটা চেঞ্জ চলে আসে, পালটে যাই, বদলে যাই অনেক বেশি। কোন কারণ নেই এই বদলে যাবার, এই বদলে যাওয়াটা একটা নিয়ম।

যখন ফেসবুক ছিলনা, ইন্সটা ছিলনা তখন কেমন ছিল আমাদের বদলে যাবার আগের দিনগুলো সেটা নিয়েই এই উপন্যাস। এখানে আছে কিছুটা সত্য, কিছুটা কল্পনা”।

বদলে যাবার আগের সার সংক্ষেপঃ

বদলে যেতে কোন কারণ লাগেনা,  বদলে যাওয়াটা একটা নিয়ম।

আমরা সবাই এই নিয়মের মাঝে পড়ি, কেউ আজ বদলায় কেউ কাল। মনে পড়ে মুনীর চৌধুরীর সেই কথা-

“মানুষ মরে গেলে পচে যায়, বেঁচে থাকলে বদলায়…………”

এই বদলে যাওয়া নিয়েই মোস্তফা মনোয়ার-এর উপন্যাস “বদলে যাবার আগে”।

ঔপন্যাসিক এখানে কিছু চরিত্র দেখিয়েছেন যাদের বয়স ১৪-২০ এর মাঝে। সেই বয়সটাতে তারা কেমন ছিল তা দেখিয়েছেন। এবং তারপর হুট করে তারা সবাই বদলে যায়। আমাদের আর সবার মতই।

এই ২০ বছরের পরেই বোধহয় মানুষের জীবনে সবচাইতে বেশি বদল হয়। আমার জীবনেও হয়েছে, আপনার জীবনেও।

কেমন ছিলেন আপনি বদলে যাবার আগে? দেখে নিন উপন্যাসের চরিত্রগুলোর মাধ্যমে।

কোন মন্তব্য নেই