মুক্তিযুদ্ধে অর্জিত বাংলাদেশ
এখানে বাবুল আক্তাররা হারতে পারে না

0
Babul-Akter-bg20160405211854
পুলিশ বিভাগে সৎ এবং সাহসী একটি নাম বাবুল আক্তার

বাবুল আক্তারকে নতুনভাবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার কিছু নেই। একজন বাবুল আক্তার মানে জঙ্গিবাদমুক্ত, সন্ত্রাসবাদমুক্ত বাংলাদেশের জোরালো স্বপ্ন। পুলিশ সম্পর্কে যখন মানুষ হতাশ হচ্ছিল তখনই এক এক করে যে ব্যক্তিটি ট্যাকনিক, ট্যাকটিসের মাধ্যমে অপরাধী, সন্ত্রাসী, রাষ্ট্রদ্রোহী জঙ্গিদের নাস্তানাবুদ করছিলেন তাঁর নাম বাবুল আক্তার।

ইফতার করতে বসে যে ব্যক্তিটি ইফতারি রেখে কোন এক অচেনা অজানা মানুষের তথ্যেও ভিত্তিতে একজন পথচারীর জীবন রক্ষা করতে ছুটে গিয়ে সন্ত্রাসীকে পাকড়াও করেছিলেন- তিনি বাবুল আক্তার। অথচ সেটা হতে পারতো জীবন বিনাশী ফাঁদ। তাঁর অপরাধ বিরোধী সফলতা কয়টা বলবো? কর্ণেল গুলজারও ছিলেন এদেশের দেশপ্রেমিক, শান্তিপ্রিয় মানুষের আশা-ভরসার কেন্দ্র বিন্দুতে।

babul-akter..mitu-akter
এ ছবি আজ শুধুই স্মৃতি…..

গুলজারকে হারিয়ে তার পরিবার পরিজন কীভাবে জীবন কাটাচ্ছেন সেটা মিডিয়ার কল্যাণে জাতি জানার সুযোগ পায়। জঙ্গিদের যমদূত গুলজারের মৃত্যু কেমন ছিল কম-বেশী সবাই জানি। গুলজারের পর আমার মতো সাধারণ মানুষ আশায় ছিলাম- আমাদের একজন বাবুল আক্তার আছেন। হ্যা তিনি আছেন, তাঁকে থাকতে হবে। একজন বাবুল আক্তার মানে- সিনিয়র চায় তাঁকে কাছে রাখতে, জুনিয়র চায় তাঁর কাছে থাকতে। বাবুল আক্তার নয়, কাঁদছে দেশ। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে সীমানার বাহিরেও অশ্রুসিক্ত শান্তিকামী প্রবাসী মানুষজন। সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গীবাদ শুধু চট্টগ্রামের সমস্যা নয়। এটি জাতীয় সমস্যা, আন্তর্জাতিক সমস্যা। জঙ্গিবাদ বিরোধী তাঁর সফলতা জাতিসংঘ পর্যন্ত অবগত। এটা একজন বাবুল আক্তারের অর্জন। যে সৌভাগ্য সবার হয় না। কিন্তু এত অর্জন ব্যক্তি বাবুল আক্তারকে নিঃস্ব করে দিল! মিতু ভাবীর নামাযে জানাযার সময় ছিল ২.৩০টা। শুরু হলো আরো ঘন্টা খানেক দেরীতে।

babul-akter_15221_1465125733
আরেকজন সৎ এবং সাদা মনের মানুষ (অধ্যাপক আবু সাঈদ) সাথে বাবুল আক্তারের পরিবার।

এই এক ঘন্টা দেখলাম দামপাড়াস্থ পুলিশ কর্মকর্তা, সদস্যদের চোখের পাতা ভেজার করুণ দৃশ্য। বোবাকান্নায় ভারী শহীদ এসপি শামসুল হক, শহীদ এসপি নাজমুল হক, ওসি খালেক, আর আই আকরামদের স্মৃতি বিজড়িত মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম বধ্যভূমি দামপাড়া পুলিশ লাইন! জঙ্গীদের দুই আতংক যখন নির্মমতার শিকার হন, তবে প্রশ্ন উঠাটা স্বাভাবিক- রাষ্ট্র জঙ্গী ইস্যুতে কী ভূমিকা নিল? জঙ্গী মূলোৎপাটনের এক কারিগর জীবন দিলেন, আরেক কারিগরের জীবন-সংসার আজ ছিন্নভিন্ন! কোন আশ্বাস নয়, অন্যান্য ইন্টিলিজেন্সের পাশাপাশি নবগঠিত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন কী করে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

d5a71b820232f48d69ea268610bb9438-5753f3d82b2c1
মাহমুদা খানম মিতুর এই হাসি চীর অমলিন…

তাঁদেরকে আমরা শতভাগ সফল দেখতে চাই। নিরাপদে নিশ্চিন্তে চলতে চাই এই মুক্ত ভূমিতে। যে মাটি মুক্ত করতে ত্রিশ লক্ষ মানুষ শহীদ হলেন আর দুই লক্ষ মা-বোন ইজ্জত হারিয়েছেন। মিডিয়া কর্মী হিসেবে সাগর-রুনির ৪৮ ঘন্টার প্রতীক্ষা এখনো আমাদের শেষ হয়নি। সেদিনের ছোট্ট শিশু মেঘ বড় হচ্ছে। গত মা দিবসে সে গলায় ফেস্টুন ঝুলিয়ে মায়ের কবরের পাশে দাঁড়িয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে ব্যাঙ্গ হাসি হাসছিল। আমাদের অনুভূতিতো সেই কখন শূণ্য হয়েছে! মেঘের অনাথ মুখও আমাদের সহ্য হয়ে গেছে। আমাদের হৃদয় যেন ছোট্ট মেয়ে তাবাস্সুম তাজনীম তাপুর, ছেলে আক্তার মাহমুদ মাহিরের কষ্ট সহ্য না করে। তাদের মায়ের খুনীদের চিহ্নিত করে, দৃষ্টান্তমূলক সাজার ব্যবস্থা হোক।

Advertisements

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন