চবি শিক্ষক সমিতিঃ দুইদিনের আগাম নির্বাচনে ১৪০ ভোট

0
.

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচন আগামী ২৬ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বামপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন ‘হলুদ দল’ এবং বিএনপি-জামায়াত পন্থী ‘সাদা দল’ এ দুটি প্যানেলে ১১টি পদের বিপরীতে মোট ২২ জন শিক্ষক প্রার্থী হচ্ছেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও ইনস্টিটিউট অব ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, দুই প্যানেল ছাড়া আর কেউ স্বতন্ত্রভাবে প্রার্থী হয়নি। এছাড়া মূল নির্বাচনের আগে সমিতির কার্যালয়ে ২০ ও ২৩ এপ্রিল সকাল ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শিক্ষকদের সুবিধার কথা বিবেচনায় আগাম নির্বাচনের সুযোগ রাখা হয়েছে। মূল নির্বাচন ২৬ এপ্রিল সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ মিলনায়তনে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে সমিতি কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনে আগাম ভোট গ্রহণ আজ রবিবার শেষ হয়েছে। রবিবার ও গত বৃহস্পতিবার দুই দিনে আগাম ভোট পড়েছে ১৪০টি আগাম ভোট পড়েছে। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে প্রথম দিনে ৫২টি এবং আজ দ্বিতীয় দিনে ৮২টি ভোট পড়েছে।

আজ দুপুরে শেষ দিনের আগাম ভোটগ্রহণ শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন এ তথ্য জানান সাংবাদিকদের।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বামপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন `হলুদ দল` এবং বিএনপি-জামায়াত পন্থী `সাদা দল` থেকে দুটি প্যানেলে ১১টি পদের বিপরীতে মোট ২২ জন প্রার্থী হয়েছেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রফেসর ড. মহিউদ্দিন বলেন, মোট ভোটারের ৮২৫ জন শিক্ষক ভোটার রয়েছেন। এদের মধ্যে যারা মূল নির্বাচনের দিন উপস্থিত থাকতে পারবেন না তাদের সুবিধার কথা মাথায় রেখেই দুদিন অগ্রীম ভোট গ্রহণের সুযোগ রাখা হয়েছিল।

মূল নির্বাচন ২৬শে এপ্রিল (বুধবার) সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ মিলনায়তনে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচন কমিশনার সূত্রে জানা গেছে, সভাপতি পদে হলুদ থেকে পদার্থ বিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মিহির কুমার রায় ও সাদা দল থেকে রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান এবং সাধারণ সম্পাদক পদে হলুদ দল থেকে ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. ময়াজ্জেম হোসেন ও সাদা দল থেকে ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজের অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়া হলুদ দলের হয়ে সহ-সভাপতি পদে ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহবুবুল হক, কোষাধ্যক্ষ পদে ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল হক এবং যুগ্ম-সম্পাদক পদে যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাধব চন্দ্র দাস এবং সদস্য পদে ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক ড.মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম, মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক এস এম সালামত উল্ল্যাহ ভূঁইয়া, চারুকলা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক শায়লা শারমিন, ফলিত পদার্থ বিদ্যা, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আরিফুল ইসলাম, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের মো.বখতেয়ার উদ্দিন ও আইইর ইনস্টিটিউটের মো. ইফতেখার আরিফ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সাদা দল থেকে সহ সভাপতি ইনস্টিটিউট অব ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আকতার হোসেন, কোষাধ্যক্ষ পদে মার্কেটিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. বজলুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শের মাহমুদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এছাড়াও সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মোশারফ হোসেন, আরবী বিভাগের অধ্যাপক ড. আসম আবদুল মান্নান চৌধুরী, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. কামাল হোসেন, ইসলামি স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবু নছর মো. আবদুল মাবুদ, যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ যাকারিয়া, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. শাহ আলম।

কোন মন্তব্য নেই