জেলা প্রশাসনে মত বিনিময় সভায় সিদ্ধান্ত

রমজানে ছোলা-চিনির পাইকারি ও খুচরা দাম নির্ধারণ

0

আগামী রমজানে দুটি অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ছোলা-চিনির পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সভায় পণ্য দুটি মূল্য নির্ধারণ করা হয়।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নগরীর বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে প্রতি কেজি ছোলা পাইকারিতে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা এবং খুচরা পর্যায়ে ৮০ থেকে ৮৫ টাকায় বিক্রি হবে। প্রতি কেজি চিনি পাইকারিতে ৫৮ থেকে ৬০ এবং খুচরায় ৬২ থেকে ৬৩ টাকায় বিক্রি হবে।

রমজান উপলক্ষ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ, মূল্য স্থিতিশীল রাখতে বাজার মনিটরিং এবং কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। এতে ব্যবসায়ী নেতা, আমদানিকারক, পাইকারি ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে চট্টগ্রাম জেলা প্র্রশাসক সামসুল আরেফিন সাংবাদিকদের জানান, আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে রমজানের অন্যতম দুটি পণ্য ছোলা- চিনির পাইকারি ও খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভাল মানের প্রতি কেজি ছোলা ৮০ টাকা এবং মাঝারি মানের ছোলা ৭৫ টাকায় বিক্রি হবে। খুচরায় বিক্রি হবে ৮৫ ও ৮০ টাকা দরে। একইভাবে প্রতি কেজি চিনি পাইকারিতে ৫৮ থেকে ৬০ এবং খুচরায় ৬২ থেকে ৬৩ টাকা বিক্রির সিদ্ধান্ত হয়েছে।

শুক্রবার থেকেই এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক বলেন, ঈদ পর্যন্ত এই দামে বিক্রি করতে হবে। যারা জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত দামে বিক্রি করবে না তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলা প্রশাসনের পাঁচটি দল নিয়মিত বাজার মনিটরিং করবে।

কেবল ছোলা-চিনি নয় কাঁচা পণ্য (বেগুন, কাঁচা মরিচ) এবং কাপড়ের বাজার স্থিতিশীল রাখতে ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা সকালে কাপড় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। কাপড় ব্যবসায়ীরা অনিয়ম করছে কিনা তা তদারকি, অতি মুনাফা, ক্রয় রশিদ ও অভিযোগ বাক্স রাখা সিদ্ধান্ত হয়েছে। এসব সিদ্ধান্ত ব্যবসায়ীরা মেনে নিয়েছেন।

সভায় চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম, পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, বিএসএম আমদানিকারক আবুল বশর, মীর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুস সালাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

কোন মন্তব্য নেই