বাঁশখালিতে জনতার রোষানলে পুলিশ

3
5240215f8900d-_AZI0796
পুলিশের উপর হামলার ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর কালীপুর ইউনিয়নের পূর্ব পালেগ্রামে আসামি ধরতে অভিযানে গিয়ে স্থানীয়দের রোষানলে পড়ার পর পুলিশ গুলি চালালে করিম উদ্দিন (২৪) নামের একজন আহত হয়েছেন।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তিনি স্থানীয় পুতুল আলীর ছেলে।

জয়নাল আবেদীন বলেন, সকালে বাজারের একটি চায়ের দোকানে বসে কয়েকজন তাস খেলছিল। এসময় পুলিশ এসে তাদের ওপর হামলা চালায়। পুলিশ গুলি করলে করিম উদ্দিনের পশ্চাতদেশে গুলি লাগে। আহত করিম চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

করিম তাস খেলায় অংশ নেয়া যুবকদের মধ্যে ছিলেন না। তিনি দোকানের বাইরে দাঁড়ানো ছিলেন বলে দাবি করেন জয়নাল আবেদীন।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে পূর্ব পালেগ্রামে অভিযানে যায় পুলিশ। এসময় একটি চায়ের দোকানে কয়েকজন যুবক তাস খেলছিল। ওই যুবকরা ‘জুয়া খেলছে’ এবং তারা ডাকাত দলের সদস্য এমন অভিযোগ এনে পুলিশ তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা পুলিশের ছয় সদস্যের দলটিকে ঘিরে ফেলে। এসময় তারা কনস্টেবল মো. হানিফকে মারধরও করে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের এএসপি কামরুল ইসলাম বলেন, ডাকাতি মামলার আসামি ধরতে পুলিশ অভিযানে গিয়েছিল। কয়েকজন যুবক তাস খেলছিল। সেখানে পুলিশ গেলে তাদের ঘিরে ফেলা হয়। কনস্টেবল হানিফকে মারধর করা হয়।

তিনি বলেন, শর্টগানের চার রাউন্ড গুলি করা হয়েছে। এতে একজন আহত হয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলে আছি। গুলি করার মত পরিস্থিতি কেন হলো তা খতিয়ে দেখছি।

স্থানীয় রামদাস হাট পুলিশ ফাঁড়ির এসআই খলিলুর রহমান ঘটনাস্থলেই আহত করিম উদ্দিনের হাতে হাতকড়া পরিয়ে দেন বলে অভিযোগ করেন জয়নাল আবেদীন। তিনি বলেন, মেডিকেলে আসার পর করিমের হাতকড়া খুলে দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে এসআই খলিলুর রহমানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

3 মন্তব্য

একটি মন্তব্য দিন