দ্বিতীয় দিনের মত অস্ত্র উদ্ধার অভিযান চলছে
রাজধানীর উত্তরায় এতো অস্ত্র আসলো কোত্থেকে !

0
Uttara1
আজ রোববার বাক্সভর্তি অস্ত্র উদ্ধার করছেন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

রাজধানীর উত্তরার ১৬ নম্বর সেক্টরে বৌদ্ধমন্দিরের পাশের খালে আজও অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। উদ্ধার করা হয়েছে ৩২টি ম্যাগাজিন ভর্তি একটি কার্টন।

শনিবার থেকে অস্ত্র উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়। গতকাল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডুবুরিরা ১০৮টি চায়নিজ পিস্তল, ২৫০টি ম্যাগাজিন, ১১টি বেয়নেট ও এক হাজার গুলি উদ্ধার করে। অস্ত্র ও গুলিগুলো সাতটি কাপড়ের ব্যাগের মধ্যে ছিল।

উত্তরা বৌদ্ধ মন্দিরের পাশের খাল থেকে ১০৮টি চায়নিজ পিস্তল, ২৫০টি ম্যাগাজিন, ১১টি বেয়নেট উদ্ধার করা হয়।

শনিবার সন্ধ্যার কিছু সময় আগে ১৬ নম্বর সেক্টরের বৌদ্ধ মন্দিরের পাশের খাল থেকে এসব অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

দেশবাসীর মনে প্রশ্ন জেগেছে এতো নতুন অস্ত্র রাজধানীতে এলো কি করে ?

পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার বিধান ত্রিপুরা বলেন, অস্ত্র ও গুলিগুলো আটটি কাপড়ের ব্যাগের মধ্যে ছিল। এই অস্ত্রগুলো আনার পেছনে আন্তর্জাতিক ও দেশীয় চক্রান্ত থাকতে পারে।

তিনি বলেন, বেলা তিনটা থেকে সাড়ে তিনটার মধ্যে কালো রঙের একটি পাজেরো গাড়িতে করে এসে কেউ এই ব্যাগগুলো খালে ফেলে যায়। পুলিশ নিজস্ব সোর্সের মাধ্যমে এটা জানতে পেরে অভিযান চালায়। গাড়িটির কোনো নম্বর প্লেট ছিল না বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা। ওই সড়কে চেকপোস্ট ফাঁকি দিয়ে কীভাবে নম্বর বিহীন একটি গাড়িতে করে এসে কেউ অস্ত্র ফেলে গেল এমন প্রশ্নে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

পুলিশ জানিয়েছে, উদ্ধার করা অস্ত্রের মধ্যে ৯৫টি সেভেন পয়েন্ট ৬২ পিস্তল ও দুটি নাইন এমএম। ম্যাগাজিনের মধ্যে ১৮৯টি সেভেন পয়েন্ট ৬২ পিস্তলের এবং বাকি ২৬৩টি এসএমজির (লাইন মেশিনগান)। উদ্ধার হওয়া গুলির মধ্যে ৮৪০টি নাইন এমএমের। বাকি ২২০টি সেভেন পয়েন্ট ৬২ পিস্তলের।

বিধান ত্রিপুরা বলেন, এগুলোর গায়ে উৎপাদনকারী দেশের নাম উল্লেখ নেই। তবে অস্ত্রগুলো নতুন। এখনো ব্যবহার করা হয়নি। সাঁড়াশি অভিযান ও পুলিশের নানামুখী তৎপরতার কারণে দুর্বৃত্তরা অস্ত্রগুলো ফেলে যেতে বাধ্য হয়েছে।

রবিবার পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করবেন বলে জানা গেছে।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন