সহায়ক সরকারের অধীনেই জাতীয় নির্বাচন দিতে হবে: ডা: শাহাদাত

0
.

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশে আজ নির্বাচন নিয়ে শেখ হাসিনা লুকোচুরি খেলছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বিগত ৫ জানুয়ারীর মত প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন করে হাসিনা আবার ক্ষমতায় ঠিকে থাকতে চায়। জনগণকে শেখ হাসিনা ভয় পায়। তাই বিগত দিনে বিএনপি’র নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের যে দাবি সে দাবিকে পাশ কাটিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ তামাশার নির্বাচন দেশের জনগণকে উপহার দিয়েছে।

তিনি আজ সোমবার বিকালে জেলার বাঁশখালী উপজেলার পূর্ব চাম্বল মিয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে মোজাহের মর্জান স্মৃতি কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত এক স্মরণ সভায় প্রধান অথিতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত আরো বলেন, দেশের মানুষ আজ নিজের ভোট যাকে খুশি তাকে দিতে চায়। ভোট কেন্দ্রে উৎসবমূখর পরিবেশ মানুষ দেখতে চায়। মানুষ বিনা ভোটের জাতীয় সংসদ আর দেখতে চায় না। ইয়াবা ব্যবসায়ী, দূর্নীতিবাজ, লুটতরাজদের সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে চায় না। সকল দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে নির্বাচকালীণ সহায়ক সরকারের অধীনে আগামী সংসদ নির্বাচন এদেশের মানুষ দেখতে চায়। শেখ হাসিনা সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে তার দলের ভরাডুবি হবে। এটা বুঝতে পেরেই নির্বাচন নিয়ে কুট-কৌশল করার চেষ্টা করছে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি জনগণের দল। বিএনপি’কে বাহিরে রেখে বাংলাদেশে কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দুর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে নির্বাচনকালীণ সহায়ক সরকারের দাবি সরকারকে মানতে বাধ্য করতে হবে। সেই লক্ষ্যে বিএনপি’র সকল নেতা-কর্মীদের সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বে তিনি ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

শাহাদাত বলেন, মরহুম মোজাহেরুল হক চৌধুরী ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ জিয়ার আদশের্র সৈনিক, সুশিক্ষিত খাটি দেশপ্রেমিক। তাঁর আদর্শকে সকলকে ধারণ করতে হবে।

মোজাহের মর্জান স্মৃতি কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মারুফুল হক চৌধুরীর সঞ্চালনায় ও মরহুমের ছোট ভাই আলহাজ্ব মাওলানা ফয়েজুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী, গন্ডামারা ইউনিয়নের চেয়্যাম্যান লেয়াকত আলী, সাবেক পৌর মেয়র কামরুল ইসলাম হোসাইনী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক গাজী মোহাম্মদ সিরাজউল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম, বিএনপি নেতা লোকমান চেয়ারম্যান, কোতোয়ালী থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাকির হোসেন, বায়েজিদ থানা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের জসীম, কামাল উদ্দিন, আব্দুল হালিম স্বপন, মো: সেলিম, সরোয়ার আলম, ইব্রাহিম চেয়ারম্যান, এ.কে. এম. আনিসুর রহমান, আব্দুল হক, আজিজ উদ্দিন মিন্টু, এডভোকেট নেজাম উদ্দিন, সাবের আহমদ, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, মো: শহিদুল ইসলাম, আতিকুর রহমান ফারুকী, জাফর আহমদ, আবদুর রশিদ, সরোয়ার আলী খান, তোফায়েল আহমেদ, বদিউল আলম, মাহবুবুল আলম, ওমর সানি, মোস্তাক, মেহেদী, শাহাজাদা চৌধুরী, আমিন উল্লাহ, ফরিদ উল্লাহ, ফরিদ আহমদ, নূর আহমদ, রেজাউল করিম, শহিদ মনির, আবু সৈয়দ, আজিজ আহমদ, ফিরোজ চৌধুরী, আবুল কালাম, মো: কাদের, মো: নাছির উদ্দিন, মিজানুর রহমান সিকদার, জিয়াউল হাসান, ওসমান গণি মোজাহিদ, মাহমুদুল ইসলাম, মহিউদ্দিন সহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন