হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে ২০০ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণের নোটিশ
এস আলম গ্রুপের ২৩৩ হাজীর সাথে প্রতারণার অভিযোগ

22
ফাইল ছবি।

দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান এস আলম গ্রুপের ২৩৩ জন হাজীর সাথে প্রতারণার ও হয়রানীর অভিযোগে

মেসার্স শাহ আমানত হজ্ব কাফেলা ট্রাভেলস এন্ড ট্যুরস নামে একটি হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে ২০০ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণের নোটিশ দেয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকালে এস আলম গ্রুপের পক্ষে মানবাধিকার আইনজীবী এডভোকেট জিয়া হাবীব আহসান আজ উক্ত নোটিশ প্রদান করে । এতে সমস্যা সমাধানে ২৪ ঘন্টার সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়, ধর্মীয় কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে প্রতি বছর আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল ব্যক্তিদের একটি দল হজ্বে পাঠান এস আলম গ্রুপ। এবারও ২৩৩ জনকে সৌদী আরবে পাঠানো হয় মেসার্স শাহ আমানত হজ্ব কাফেলা ট্রাভেলস এন্ড ট্যুরস এর মাধ্যমে।

উক্ত কাফেলার মাধ্যমে ২৩৩ জন হাজির মধ্যে এ ক্যাটাগরির ৩,৬০,০০০/= জনপ্রতি হিসেবে যাবতীয় ব্যায় বাবদ গত ২২/১১/১৬ নং তারিখের চুক্তি মোতাবেক ৮,৩৮,৮০,০০০/= টাকা তাদের প্রদান করা হয় ।

গত ০৭/০৮/১৭ ইং তারিখে এস আলম গ্রুপের তালিকাভুক্ত হাজিদের পবিত্র মদিনা মনোয়ারায় পৌঁছানো হয় । কিন্তু তাদের নির্ধারিত হোটেলে না রেখে বিভিন্ন নন এসি রুমের এক একটি কক্ষে ৮/১০ জন হাজীকে ঠাসাঠাসি করে রাখা হয় যেখানে এটাচ বাথরুমও নেই । এতে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন । তাদেরকে বার বার হোটেল পরিবর্তন সহ ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় ব্যাগ ব্যাগেজ নিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা হচ্ছে । চুক্তিভঙ্গ ও প্রতারণার অভিযোগে শাহ আমানতকে প্রদত্ত নোটিশ প্রাপ্তির ২৪ ঘন্টার মধ্যে হাজীদের চুক্তি মোতাবেক যাবতীয় সেবা নিশ্চিত করতে সময় বেঁধে দেয়া হয় ।

অন্যথায় মেয়াদগতে ২০০ কোটি টাকা সুনামক্ষুণ্ণের এবং প্রতারণা ও বিশ্বাস ভঙ্গের অভিযোগে ফৌজদারী ও দেওয়ানী আদালতে যুগপৎ মামলা দায়েরর ব্যপারে সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয় ।

যাদের প্রতি আইন নোটিশ দেয়া হয় তারা হলেন শাহ আমানত হজে কাফেলার এম. ডি মোহাম্মদ ইয়াছিন, পরিচালকরা হলেন যথাক্রমে মোঃ মহিউদ্দিন, মোঃ সাইফুদ্দিন জহুর, এ.টি.এম শাহজালাল, মোঃ নাঈম উদ্দিন জহুর প্রমুখ।

উল্লেখ্য যে, ১ট লাইসেন্সে ৩০০ হাজী নেয়া যায় কিন্তু শাহ আমানত হজ্ব কাফেলা বিভিন্ন লাইসেন্স ব্যবহার করে প্রায় ১৬০০ জন হাজী নিয়ে যায় । ফলে হাজীদের দুর্ভোগের শিকার হন ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাজীদের দুর্ভোগের বিষয়টি শিকার করে শাহ আমানত হজে কাফেলার এম. ডি মোহাম্মদ ইয়াছিন বলেন, মক্কায় আমরা হাজিদের জন্য যে বাড়ী ভাড়া করেছি সে বাড়ির মালিকানা নিয়ে সে দেশের দুই ভাইযের বিরোধের কারণে বাড়ীটি সীলগালা করে দিয়েছে সৌদী কর্তৃপক্ষ। একারণে হঠাৎ এ সমস্যার কারণে আমাদের হাজীরা একটু দুর্ভোগে পড়েছেন। আমরা আবার একটি নতুন বাড়ী ভাড়া করে হাজীদের থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছি ইতোমধ্যে। হাজীদের এ দুর্ভোগের জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। এ একটি দুর্ঘটনা এতে আমাদের কারো হাত নেই।

22 মন্তব্য

  1. আসলে বাংলাদেশে কি কোন এজেন্চির প্রয়োজন আছে? এই কাজটা ধর্ম মন্ত্রনালয় করতে পারেনা? আমারতো মনে হয় সরকারের এই কাজটা নিজ দায়িত্বে করা উচিত।

  2. eta শাহ অামানতের পুরাতন অব্যাশ,,,,গত বছর ৩ জন হাজি থেকে ২০লাখ টাকা নিচে 5★ মানের হোটেলে রাখবে বলছে,কিনতু 3* মানের হোটেলে রাখেনি,,,এভাবে হাজিদের থেকে কোটি কোটি টাকা মেরে নিচছে পতি বছর,,,,

  3. হজ্বের মতো একটি ইবাদতকে বাংলাদেশের ধর্ম মন্ত্রণালয় আর কিছু এজেন্সি মিলে ব্যবসা বানিয়ে ফেলেছে!!
    হজ্ব কার্যক্রমের প্রতিটি প্রক্রিয়ায় ঘুষ বানিজ্য চলতেছে মারাত্মক ভাবে, সবখানেই অসহনীয় অস্থিরতা !!

  4. আপনাদের তথ্যের মধ্যে অনেকটা ত্রুটি বিচ্যুতি রয়েছে। যে ঘঠনা টা আপনি উল্লেখ করেছেন এবং যা ক্ষতিপূরণের কথা বলেছেন, সেগুলোতো আপনার সর্বশেষ কথার মধ্যেই সমাপ্ত হয়েগেছে। শাহ্ আমানত হজ্ব কাফেলার এম.ডি মহোদয় বলেছেন, যে ঘরগুলো নেয়া হয়েছে তা ঠিক ছিলো। হঠাৎ ঘরের মূল মালিক এক ভাই অপর ভাইয়ের সাথে ঝগড়ার কারণে সেই দেশের সরকারী কিছু আইনের সমস্যা হয়েছে। তবে শাহ্ আমানত হজ্ব কাফেলার ডিরেক্টর সকলের অক্লান্ত পরিশ্রমের বিনিময়ে হাজ্বীদের সেবাই নতুন ঘরের ব্যাবস্থা নিশ্চিত করেছেন। এস.আলম.গ্রুপের মূল মালিক মাসুদ সাহেব হাজ্বীদের সাথে ফোনে আলাপ করে নিশ্চিত হয়েছেন যে, সকল হাজ্বীরা ভালো ও যথাযত সার্বিসের আওতায় আছেন এবং তাৎক্ষণিক নতুন হোটেল ভাড়া করে হাজ্বী সাহেবানদের স্থান্তর করাতে সকল হাজ্বী ও জনাব মাসুদ সাহেব গতদিন সন্ধাবেলায় শাহ্ আমানত হজ্ব কাফেলাকে অান্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন।

    আলহামদুলিল্লাহ্ সেখানে আমার আত্মিয়-স্বজনরা রয়েছেন, যাদেরকে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে ফোন করে জানতে পারলাম তারা সকলে ভালো আছেন।হাজ্বীরা এক বাক্যে স্বীকার করলেন শাহ্ আমানত হজ্ব কাফেলার আন্তরিকতার অভাব না থাকার কারণে নতুন করে ভাড়াকৃত হোটেলে তৎক্ষণাত উঠা সম্ভব হয়েছে(আলহামদুলিল্লাহ্)।

    পরিশেষে এ ফরিয়াদ মহান প্রভূর দরবারে, সকল আল্লাহর মেহমানবৃন্দ নিরাপদে থাকুক,সুস্থ থাকুক। আমিন।

  5. শাহ্ আমানত হজ্ব কাফেলা দীর্ঘ দিন ধরে হাজ্বীদের উত্তম সেবা প্রদান করে দেশের শীর্ষস্থানে অবস্থানরত।অনেকে যাচাই না করে ভূল তথ্য প্রদানের মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আলহামদুলিল্লাহ্ পবিত্র মদীনা শরীফে হাজ্বীসাহেবানেরা তাদের যথাযথ সার্বিচের মাধ্যমে নিরাপদে আছেন। প্রায় ১৬০০ হাজ্বীর নিবন্ধন ও ভিসা প্রকৃয়া সম্পন্য করে ০২টি পূর্ণ ফ্লাইটে চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি মদিনা এয়ার পোর্টে অবতরণ এবং অন্য আরো ০১টি স্যাটার ফ্লাইট সহ সকল হাজ্বীদের যাত্রা নিশ্চিত ও ভিসা, পাসপোর্ট, টিকেট, সকল কার্যাদি সফলতান সাথে সুসম্পন্ন করেছে।
    দো’আঃ আল্লাহ্ পাক সকলের হজ্বকে কবুল করুন। আমিন

  6. মুহাম্মদ আবদুল কাদের
    কোন ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠানের অতীত বর্তমান সম্পর্কে কোন ধারণা না নিয়ে ভুল মন্তব্য করা যেমন অপরাধ তেমনি তাতক্ষনিকভাবে প্রতিহিংসামূলক অবান্তর খবর ছড়িয়ে বিভ্রান্ত করাও একটি অপরাধ। বাংলাদেশে হাজীদের সেবার কথা যদি উঠে তাহলে যাচাই বাচাই করে দেখবেন শাহ আমানত হজ কাফেলা হচ্ছে সেই কাফেলা, যে কাফেলা বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় এবং প্রথম সারির কাফেলা। এই কাফেলার পরিচালক থেকে শুরু করে কর্মকর্তা কর্মচারীগণ রাতদিন পরিশ্রম করে হাজীদের সমস্ত সেবা আনজাম দিয়ে যাচ্ছেন। অনাকাঙ্খিত সমস্যা হতেই পারে যেটি কারো কাম্য নয়। হাজীদের বাসা সংক্রান্ত যে সমস্যাটি হয়েছে সেটি সৌদি আরবে পৌছার পর এবং বাসায় অবস্থানের পর এটি সম্পূর্ন একটি অনাকাঙ্খিত সমস্যা যার দরুন অত্র প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে অনেক টাকা ব্যয় করে সমাধান করেছেন। সুতরাং এতে কোন হাজীর ক্ষতি হয়নি সাময়িক অসুবিধা হয়েছে।
    আমাদের দেশের একটি রীতি হচ্ছে কেউ ভাল কাজ করতে করতে যখন একটি পর্যায়ে চলে যায় তখন কিছু ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান ভাল কাজ করা ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের পিছনে লেগে থাকে। আর এটিই হচ্ছে প্রতিহিংসা ! সুতরাং আসুন সবাই যার যার অবস্থান থেকে ভাল কাজকে সাধুবাদ জানাই সহযোগিতামূলক আচরণ করি।
    Finally, in a word, if you do good deeds, then the enemy will not leave. Allah will be with you, will be there.

  7. Okаy,? Lee statedd and then he stopped and thought.
    ?Thе very Ьest factor about Good is ??? hmmmm?????..?

    Hе puzzled becаuse he had sߋ many things that have been nice about
    God butt he wisheԀ to choose one of tthe bdst one so he would win the
    game. ?That hе knows everything. That?s really cool.

    Which means he may help me with my homeѡork.? Larry concluded with a ρroud expression on his face.

  8. Kindly remember that the c’s you’re hoping to win is referred to as the
    favourite while they you happen to be expecting to lose is called the underdog.
    To be successful in this particular venture, you will need to get it completely
    from the start that things hastily done have been in most circumstances never done
    well. Usually many gamblers lose a lot given that they are not able to distribute their set budget.