নাজমুল হুদার ইফতার পার্টিতে নাসিম
বিএনপির সঙ্গে কোনো আলোচনা হবে না

0
Najmul120160621152720
ফাইল ছবি।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আমরা অবশ্যই আলোচনা চাই। আর এর অংশ হিসেবে বিএনএর সাথে সংলাপ চলছে। কিন্তু জঙ্গি-খুনি জামায়াতের সহযোগী বিএনপির সঙ্গে কোনো আলোচনা হবে না।

সাবেক বিএনপি নেতা ও ৩১ দলীয় জোটের নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার ইফতারে যোগ দিয়ে তিনি এ কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট অডিটরিয়ামে ১৪ দলীয় জোটের সম্মানে ৩১ দলীয় বাংলাদেশ জাতীয় জোটের (বিএনএ) ইফতার মাহফিল-পূর্ব আলোচনা সভায় মঙ্গলবার বিকেলে তিনি এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, খালেদা জিয়ার সংলাপ চাওয়ার আগে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করতে হবে। একই সঙ্গে পেট্রলবোমা মেরে ও গুপ্ত হামলার মাধ্যমে মানুষ হত্যার জন্য তাকে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, খালেদা জিয়া গুপ্তহত্যাকারীদের বিচার এক দিনও চাননি। এর মাধ্যমে সব প্রমাণ হয়ে গেছে। ২০ দলের নেতারাও খালেদার এই অপরাজনীতির কারণে ক্ষিপ্ত হচ্ছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার মদদে গুপ্তহত্যা চালানো হচ্ছে। অব্যাহত গুপ্তহত্যা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির মাধ্যমে উনি নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে বিদেশিদের ক্ষিপ্ত করতে চাচ্ছেন। এর মাধ্যমে একাত্তরের পরাজিত শক্তির খুশি করতে চান।

নাসিম বলেন, তবে তার এই ষড়যন্ত্র সফল হবে না। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে গুপ্তহত্যার বিরুদ্ধে সারাদেশে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলবে ১৪ দলসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তি।

২০১৯ সালে আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতে বিএনপি নেত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনের বিকল্প নির্বাচন। খুন-হত্যা কখনোই নির্বাচনের বিকল্প হতে পারে না। খুনি-বোমাবাজদের চেয়েও বড় শক্তিশালী হলো দেশের জনগণ। তাই খুনি-জঙ্গিদের ঘৃণা করুন।

তিনি বলেন, ১৫-২১ জুলাই গুপ্তহত্যা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ সপ্তাহ কর্মসূচির অংশ হিসেবে গ্রাম-গঞ্জে, পাড়া-মহল্লায় যাবেন কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতাদের। বিএনএর এলাকা ভাগ করে দেওয়া হবে। আবারও অপশক্তির পরাজয় হবেই।

সভাপতির বক্তব্যে বিএনএর চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নামজুল হুদা বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া খুনিদের সঙ্গ কখনোই ছাড়বেন না। অতীতে অবরোধের নামে পেট্রলবোমা মেরে মানুষ হত্যা করেছেন। উনি অবরোধ এখনো তুলে দেননি। তাই প্রমাণিত হয়, প্রত্যেক হত্যাকাণ্ড তার মদদেই হচ্ছে।

অবিলম্বে অবরোধ প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, অপশক্তির যে কোনো অপতৎপরতা জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির মাধ্যমে রুখে দিতে সেন্টার ফর ন্যাশনাল ডায়ালগ করা প্রয়োজন।

এ সময় ১৪ দলের সঙ্গে একযোগে কাজ করার ঘোষণা পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।

ইফতার অনুষ্ঠানে আরও যোগ দেন ১৪ দলীয় জোটের শরিক সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন প্রমুখ।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনএর কো-চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী এম নাজিম উদ্দিন আল আজাদ, বিএনএর মহাসচিব ও বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলী মনি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়ারম্যান শেখ মোস্তাফিজুর রহমান, দেশপ্রেমিক নাগরিক পার্টির চেয়ারম্যান আহসান উল্লাহ শামীম, বাংলাদেশ স্বাধীনতা পার্টির চেয়ারম্যান ডা. শাহ সম্রাট জুয়েল চিশতী, আমজনতা পার্টির চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ বেনজির আহমেদ, তৃণমূল বিএনপির মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা আবেদ আলী প্রমুখ।

Advertisements

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন