মিতু হত্যাকাণ্ড
স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ভোলাসহ দুজনকে ১০ দিনের রিমাণ্ড চাইবে পুলিশ

0
2016_06_05_08_40_41_iWZcqrwg8bIUsRKySkrpqbYdrpqzfg_original
নিহত মিতুর ফাইল ছবি।

এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম (মিতু) হত্যার ঘটনায় নগরীর বকশির হাট ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবকলীগ সহ সভাপতি এহতেশামুল হক ভোলা ও মনির নামে দুজনকে গ্রেফতারের পর তাদের আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমাণ্ড চাইবে পুলিশ।

মঙ্গলবার দুপুরে সিএমপির নিয়মিত প্রেস ব্রিফিং এ তা জানান সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার দেবদাস ভট্টাচার্য্য।

তিনি জানান, গ্রেফতারকৃত এ দুই আসামী মিতু হত্যাকা-ে জড়িত কিলার গ্রুপের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করেছিল। যা গত রবিবার আদালতে ১৬৪ ধারায় দেয়া জবানবন্দিতে বলেছে অপর দুই আসামী মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম (২৭) ও আনোয়ার হোসেন (২৮)।

এ জন্য আরো তথ্য পেতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ভোলা ও মনিরকে আদালতে তুলে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।
ইতোমধ্যে পুলিশ দুইজনকে আদালতে হাজির করেছে।

এর আগে পুলিশের দেয়া এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় ইতিপূর্বে গ্রেফতারকৃত আসামী ওয়াসিম জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে যে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র গুলি তারা হত্যাকান্ডের আগে ধৃত আসামী ভোলার নিকট হতে সংগ্রহ করেছিল এবং হত্যাকান্ড শেষে উক্ত অস্ত্র গুলি ভোলার নিকট ফেরত প্রদান করে। ওয়াসিম (২৭) এর স্বীকারোক্তির প্রেক্ষিতে মামলার আসামীদের গ্রেফতার করা হয় এবং মিতু হত্যায় ব্যবহৃত ১টি বিদেশী পিস্তল, ১টি রিভলবার, ম্যাগাজিন ও ৬ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ভোলার বিরুদ্ধে হত্যা, অস্ত্র আইন (১০ বছরের সাজা প্রাপ্ত), জননিরাপত্তা আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইনে সিএমপির বিভিন্ন থানায় ১৬ টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (দক্ষিণ) মো.কামরুজ্জামান জানান, সোমবার রাতে নগরীর বাকলিয়া এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

গত ৫ জুন সকালে নগরীর জিইসি এলাকায় বাবুল আক্তারের স্ত্রী গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা। গ্রেফতারকৃত দুইজন কিলিং মিশনে অংশগ্রহণকারীদের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করেছিল দাবী করেন পুলিশের এ কর্মকর্তা।

Advertisements

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন