দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৩০টি গ্রামে কাল ঈদ

0
Ctg-Eid-Namaj-Pic
সাতকানিয়ার মীর্জারখিল এলাকায় ঈদ জামায়াতের ফাইল ছবি।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৩০টি গ্রামের কিছু সংখ্যক মানুষ আগামীকাল বুধবার পবিত্র ঈদ উল ফিতর উদযাপন করবেন। সাতকানিয়ার মির্জারখীল দরবার শরীফের মুরিদগণ সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে অন্যান্য বছরের মতো এবারও একদিন আগে ঈদ উদযাপন ঈদ উদয়াপনের প্রস্তুতি নিয়েছেন। দরবার শরীফের ভক্তরা রোজাও একদিন আগে থেকে শুরু করেছিলেন। ফলে আজ মঙ্গলবার তাদের ৩০টি রোজা সম্পন্ন হয়েছে। ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য ইতিমধ্যে প্রস্তুতি শুরু করেছেন দরবার শরীফ কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম ছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা মির্জারখীল দরবার শরীফের অনেক মুরিদ ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য গতকাল সোমবার বিকাল থেকে দরবার শরীফে আসতে শুরু করেছেন। আগামীকাল সকাল দশটায় দরবার শরীফের পীর হয়রত মৌলানা মোহাম্মদ আরেফুল হাই এর বড় ছেলে মুফতি মৌলানা মোহাম্মদ মকছুদুর রহমান ঈদের নামাজ পড়াবেন বলে জানা গেছে। আবহাওয়া ভাল থাকলে দরবার শরীফের মাঠে আর খারাপ থাকলে ভেতরে ঈদের নামাজ আদায় করবেন। এসব প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে বলেও জানান।
মির্জারখীল দরবার শরীফ সূত্রমতে, সাতকানিয়ার মির্জাখীল, গাটিয়া ডেঙ্গা, মাদার্শা, চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, হারাল, বাইনজুরি, কানাই মাদারি, সাতবাড়িয়া, বরকল, দোহাজারী, জামিরজুরি, বাঁশখালীর কালিপুর, চাম্বল, শেখের খীল, ডোংরা, ছনুয়া, আনোয়ারার বরুমছড়া, তৈলারদ্বীপ, লোহাগাড়ার পুটিবিলা, কলাউজান, বড়হাতিয়া এবং পটিয়া, বোয়ালখালী, হাটহাজারী, সন্দ্বীপ, রাউজান, ফটিকছড়ির কিছু এলাকাসহ চট্টগ্রামের মোট ত্রিশটি গ্রামের কিছু সংখ্যক মানুষ আগামীকাল বুধবার ঈদ-উল ফিতর উদযাপন করবেন।
এছাড়াও পার্বত্য জেলা বান্দরবানের লামা, আলীকদম, নাইক্ষ্যংছড়ি, কক্সবাজারের চকরিয়া, টেকনাফ, মহেশখালী, কুতুবদিয়া ও হ্নীলা বেশ কয়েকটি গ্রামের কিছু লোক একই সময়ে ঈদের নামায আদায় করবেন। মির্জাখীল দরবার শরীফের এসব ভক্তরা কোন কোন গ্রামে পৃথকভাবে ঈদের নামাজের আয়োজন করবেন।
আবার কিছু কিছু এলাকার মুরিদগণ সাতকানিয়ার মির্জারখীল গিয়ে দরবার শরীফ এলাকায় উপস্থিত হয়ে নামাজ আদায় করবেন। তবে বেশির ভাগ মুরিদ ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য আজ মঙ্গলবার বিকালে দরবার শরীফে এসে পৌঁছাবেন। এসব ভক্তগণ ঈদের নামাজ শেষ করে আবার ফিরে যাবেন। মির্জারখীল দরবার শরীফের মুরিদ ও মির্জাখীল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক বজলুল করিম চৌধুরী জানান, মির্জারখীল গ্রামের সব মানুষ আজ ঈদ পালন করবেন। প্রায় দুই শতাধিক বছরের অধিক সময় ধরে মির্জারখীল দরবার শরীফের মুরিদরা সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে একদিন আগে রোজা পালন ও ঈদ উদযাপন করে আসছেন। সে অনুযায়ী আজ আমাদের ত্রিশটি রোজা সম্পন্ন হয়েছে। আগামীকাল ঈদ উদযাপন করবো। তিনি আরো জানান, যেসব এলাকায় দরবার শরীফের মুরিদ বেশি রয়েছে তারা নিজ নিজ এলাকায় ঈদের নামাজ আদায় করবেন। আর যেখানে দরবার শরীফের ভক্ত কম সেসব এলাকার মুরিদগণ মির্জারখীল দরবার শরীফে এসে ঈদের নামাজ আদায় করবেন।
Advertisements

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন