কেমন হবে ঈদের সাজ

1

ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে উৎসব। রমযান মাসের সিয়াম সাধনার সঙ্গে সঙ্গে আসে ঈদের বার্তা। আর এই উৎসবে হাজারটা কাজের মাঝেও নিজেকে একটু পরিপাটি আর আকর্ষণীয় করে সাজিয়ে রাখতে সবারই মন চায়। যাতে নিজেকে সুন্দরভাবে অপরের কাছে উপস্থাপন করা যায়। হঠাৎ বৃষ্টির সাথে হঠাৎ এই রৌদ্রতপ্ত পরিবেশ যেন ঈদ এর শুভ বার্তা বয়ে আনছে।

আবার এই বার্তাকে শুভমুহুর্ত ও আনন্দ উৎসব এ পরিণত করতে বিভিন্ন ধরণের পশাকের পসরা ও প্রসাধনী সামগ্রীর এক ব্যাপক ভান্ডার নিয়ে সেজেছে সব বিপণি বিতান গুলো।তার সাথে চলছে তরুণীদের পছন্দসই এবং নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার ধুম। ঈদের আনন্দের পূর্ণতা পায় নতুন জামা-কাপড়, সাজসজ্জা, আত্মীয়-স্বজনের বাসায় বেড়াতে যাওয়া এবং বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে বেড়ানোর মধ্য দিয়ে। তাই সবার মাঝে নিজেকে আকর্ষণীয় রাখতে যা করতে পারেন।

গরমের দিনকে সামনে রেখে ঈদের সকালে নিজেদেরকে সাজিয়ে নিতে পারি হাল্কা রঙ এর কোনো পোশাকে। সকালে কম বেশি সকলেই ঘরের কোন না কোন কাজে ব্যস্ত থাকি। তাই এই সময়টার জন্য হাল্কা রঙের থ্রি-পিসকে প্রাধান্য দেয়া যেতে পারে। এর সাথে চুল খোলা রাখলে মন্দ হয় না। সকালে ত্বক এর সাথে মিলিয়ে হাল্কা মেক আপ ব্যবহার করাটাই শ্রেয়।

সকালের কর্ম ব্যস্ততা শেষে মেয়েরা তাদেরকে সাজিয়ে নিতে পারে নতুন এক রুপে। অতিথি আপ্যায়ন বা অন্য কিছুর জন্য দুপুরের সময় শাড়িকে প্রাধান্য দিলে মন্দ হয় না। এর জন্য হাল্কা রঙের শাড়ি পরিধান করাই শ্রেয় এবং সেটি যদি সুতি বা হাফ সিল্ক হয় তবে তো কথাই নেই। এ সময় হাল্কা মেকআপ ব্যবহারের সাথে ঠোঁটে ব্যবহার করা যেতে পারে হাল্কা রঙ এর লিপস্টিক। ত্বকের সাথে মানানসই মেক আপ এবং চুলকে সাধারণ একটি খোঁপা করে রেখে খুব সহজেই অন্য ধরণের একটি লুক আনা সম্ভব।

তবে ঈদের দিনে বিকেলের সময়টা বন্ধু বান্ধব দেরকে নিয়ে সময় কাটাতে কে-না পছন্দ করে। তখন মেয়েরা নিজেদের স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রেখে ওয়েস্টার্ণ পোশাক পরতে পারে। এই রকম পোশাকের সঙ্গে হাল্কা মেকআপ এবং চুল খোলা রাখা যেতে পারে।

ঈদের দিনে সব চাইতে সুন্দর এবং আকর্ষণীয় সময় হলো রাত। কারণ রাতে গরমের তীব্রতা কম থাকায় সকলেই এই সময়কে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। রাতের সাজে আমরা ভারী শাড়িকে প্রাধান্য দিতে পারি। তার সাথে সামঞ্জস্যতা রেখে অবশ্যই ভারী মেকআপ ব্যবহার করা যেতে পারে।

মুখ, গলায় ফাউন্ডেশন কমপ্যাক্ট পাউডার দিন। সাজ বেশি সময় স্থায়ী করতে স্পঞ্জ পানিতে ভিজিয়ে মুখে চেপে মেকআপ বসিয়ে নিন। চোখে মাশকারা, আইলাইনার এবং গাঢ় রঙ এর স্যাডো ব্যবহার করুন। রাতের সাজে শাড়ি খুব বেশি গর্জিয়াস হলে মেকাপটা পরিচ্ছন্ন ও উজ্জ্বল হবে। চোখের ওপরে অ্যাকোয়া ব্লু এবং গ্রে আইশ্যাডো একসঙ্গে মিলিয়ে লাগান। চোখের ইনার কর্নারে গোল্ড বা শিমারি পিঙ্ক আইশ্যাডো স্মাজ করে লাগিয়ে নিন। তবে ব্লাশনের রঙ বেশি উজ্জ্বল না হওয়াই ভালো। হালাকা রঙে লিপিস্টিক রাতের সাজের জন্য বেশি মানানসই হবে।

তবে অনেকের ত্বক শুষ্কও তৈলাক্ত থাকে। মেকআপের আগে অবশ্যই ত্বকের দিকে নজর দিয়ে মেকআপ করতে হবে। চুল মানুষের ব্যক্তিত্বকে অনকটাই পরিবর্তন করে দেয়। আমরা সচারাচর যেভাবে চুল বাঁধি এই সময় আমরা সেই চুলের ঢং টাকে পরিবর্তন করে নিজেদেরকে একটু অন্য রকম ভাবে সাজিয়ে নিতে পারি।

ভারী শাড়ি ও ভারী সাজের সাথে আরেকটু পরিপূর্ণতা এনে দিবে ভারী গহনা। এছাড়াও হাতে রাখার জন্য বিভিন্ন ধরনের ও ডিজাইনের ব্যাগ ব্যবহার করতে পারি শাড়ি বা পোশাকের সাথে ম্যাচ করে।

প্রথম মন্তব্য

একটি মন্তব্য দিন