চট্টগ্রামের ঈদ বাজার

চকবাজারের বেবী ওয়ার্ল্ড ক্রেতাদের দৃষ্টি কেড়েছে

3
.

মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদ উল-ফিতর কড়া নাড়ছে দরজায়। আর মাত্র কয়েকদিন পরই ঈদের আনন্দে মেতে উঠবে বৃদ্ধা থেকে শুরু করে নানা বয়সী নারী পুরুষ ।সেই আনন্দ বাড়তি মাত্রা যোগ করতে চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজারে ইতোমধ্যে উদ্বোধন হয়েছে ”বেবী ওয়ার্ল্ড” যা উদ্বোধনের এক সপ্তাহের মধ্যে নজর কেড়েছে ক্রেতা সাধারণের।

বিশেষ করে নারী ও শিশুদের কেনাকাটায় বেবী ওয়ার্ল্ড বিকল্প ভাবছেনা অনেক। এখানে রয়েছে লন্ডন, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের নামীদামী ব্রান্ডের প্রোডাক্টেরর বিপুল সমাহার।  ক্রেতারা এক ছাদের নীচেই পাচ্ছেন ০-থেকে ১০ বছর বয়সী শিশু ও মায়েদের সকল প্রয়োজনীয় সামগ্রী।
চকবাজারের গুলজার মোড়ের বাটা শো রুম এর বিপরীতে মুনিরিয়া ভবনের ২য় তলায় অবস্থিত বেবী ওয়ার্ল্ড এর উদ্যোক্তারা জানান, এখানে বাচ্চাদের জুতা, মোজা,খাবার কসমেটিকস, কাপড়, চকলেট, স্কুল ব্যাগ, গিফট সামগ্রী রয়েছে।
.

বেবী ওয়ার্ল্ডে মায়েদের জন্য রয়েছে গভর্কালীন খাবার, প্রেগনেন্সি বেল্ট, সিক্রেট ওয়্যার, বেবি কেরিয়ারসহ সবধরণের সামগ্রী।

জেসমিন আক্তার নামে আগত এক ক্রেতা জানান, বেবী ওয়ার্ল্ডে কাপড় ও অন্যান্য সামগ্রীর গুণগত মান, ডিজাইন ও অপেক্ষাকৃত কম দাম হওয়ায় এখানে এসেছি।
বেবী ওয়ার্ল্ড এর উদোক্তা তরুন ব্যবসায়ী আনওয়ারুল করিম জানান, উদ্বোধনের পরপরই ব্যাপক সাড়া ও জনপ্রিয়তা পেয়েছে বেবী ওয়ার্ল্ড। দীর্ঘদিন ধরে এমন একটা দোকানের প্রয়োজনীয়তা ও মানুষের ব্যাপক চাহিদা এবং দাম নিয়ে ভোগান্তির পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের এই উদ্যোগ।

যে যার সাধ্যমতো নবজাত শিশুর জন্য সবচাইতে ভালো পণ্য কিনতে চান। সুতরাং পণ্যের মানই শেষ কথা। বিশ্বায়নের কারণে চাহিদার ধরণ কিছুটা পরিবর্তিত হচ্ছে বলেও মনে করেন তিনি।

.

এখানে ডায়াপার ১৪০ থেকে ১,৭৯৫ টাকা। নিপল ৪৫ থেকে ৬৫০ টাকা। ফিডার ১৮০ থেকে ১ হাজার ৮শ’ টাকা পাওয়া যায়। সদ্যজাত শিশুর জুতা ১১০ থেকে ৫২০ টাকায় মিলবে। এখানে ৫০০ থেকে ২ হাজার টাকার মধ্যে নবজাতক থেকে ১০ বছর বয়সীদের জন্য জামা কাপড় মিলবে।

বেবী ওয়ার্ল্ডের আরেক তরুন উদ্যোক্তা জমির উদ্দিন বলেন, আমরা চলতি মাসের ৩জুন বেবী ওয়ার্ল্ডের কার্যক্রম শুরু করি। তার পর থেকেই ক্রেতাদের ব্যাপক সমাগম আমাদের অনুপ্রেরনা বাড়িয়েছে। এখানে সদ্য প্রসূত বাচ্চা থেকে শুরু করে ১০বছর বয়সী পযর্ন্ত ছেলে মেয়েদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী রয়েছে। মানুষের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পাশাপাশি চাহিদা এবং রুচিও পরিবর্তন হয়েছে। অধিকাংশ ক্রেতা ব্রান্ডিং এবং একদামে বস্ত্র কিনতে আগ্রহী। তাছাড়া সারা মার্কেট ঘুরাঘুরি না করে এক জায়গা থেকে মা ও শিশু’র সবার বাজার করতে আমাদের এখানে চলে আসছে।