কপালে টিপের জাদু

0

হঠাৎ উড়ে আসা একটি রঙিন প্রজাপতি যদি পথ ভুলে বসে পড়ে আপনার কপালে, তবে কেমন হয়? কিংবা কপালের ঠিক মাঝ বরাবর যদি ফুটে থাকে আস্ত একটি ফুল? তুলির আঁচড়ে ফুটে ওঠা এই একটি ফুল কিংবা প্রজাপতিই কিন্তু বদলে দেবে আপনার পুরো সাজসজ্জা!

এক সময় গায়ে হলুদ, পহেলা বৈশাখ কিংবা বিভিন্ন ধরনের বাঙালি অনুষ্ঠানেই কেবল তরুণীদের কপালে দেখা যেত অপেক্ষাকৃত বড় আকারে টিপ। সে রীতি ভেঙে দৈনন্দিন সাজের সঙ্গে বড় টিপ পরার প্রচলনটাও হয়েছে বেশ আগে। এখন সেই গোলাকার টিপই সেজে উঠছে নিত্য নতুন ঢঙে। কখনও কলকির নকশায় সেজে উঠছে টিপ, কখনও কপাল জুড়ে পাপড়ি মেলে দিচ্ছে রঙিন ফুল।

শাড়ির সঙ্গে নকশা করা বড় একটি টিপ পরলে আর কোনও গয়নাই লাগে না। টিনএজার থেকে শুরু করে মধ্যবয়স্ক নারীরাও টিপ কেনেন তার কাছ থেকে। অনেক ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া ছেলেও টিপ কেনেন প্রিয় মানুষকে উপহার দেওয়ার জন্য।

কেবল শাড়ি অথবা বাঙালি পোশাকের সঙ্গেই টিপ পরতে হবে এমন ধারণাকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে পশ্চিমা পোশাকের সঙ্গেও অনেকে দিব্যি পরছেন টিপ। আবার খুব সাজগোজ করে তারপর টিপ পরতে হবে এমন ধারণা থেকেও বের হয়ে এসেছেন তরুণীরা। একটি সাদামাটা ফতুয়া ও এলোমেলো চুলের সঙ্গে কপালে চট করে বসিয়ে নিচ্ছেন আলপনা করা একটি বড় টিপ।

নকশা করা বড় একটি টিপে খুব সহজেই সাজে চলে আসে উৎসবের আমেজ। তবে নকশা টিপ সবাইকে মানায় না। টিপ শুধু পরলেই হবে না, সেটি সাজ কিংবা ব্যক্তিত্বের সঙ্গে ঠিকঠাক মানাচ্ছে কিনা সেদিকে লক্ষ রাখাও জরুরি। আবার টিপ ঠিক মতো পরছেন কিনা সেটার উপরও নির্ভর করে টিপের সৌন্দর্য। কপাল ছোট হলে অথবা ভ্রু জোড়া হলে বড় টিপ না পরারই ভালো। মাঝারি সাইজের গোল টিপ মানিয়ে যায় সব ধরনের মুখেই।

বর্তমানে গোল টিপের পাশাপাশি দেখা যায়, পানপাতা আকৃতি, ওভাল আকৃতির টিপ। টিপ কেটে টিপের উপর বসিয়েও তৈরি হচ্ছে চমৎকার সব নকশা। ঝুমকা, বিডস ও রং দিয়ে সাজানো এসব টিপ পরে সেজে উঠতে পারেন আপনিও! পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে পারেন টিপ। আবার কন্ট্রাস্ট রংয়েও বৈচিত্র্য নিয়ে আসতে পারেন সাজে।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন