হাটহাজারীতে ৩ শ্যালকের পিটুনীতে ঘরজামাই অানোয়ার নিহত

0
নিহত আনোয়ারের লাশ।  নীচে দুই পার্শ্বে খুনী ৩ শ্যালক।

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলা দক্ষিণ মার্দাশা এলাকায় তিন শ্যালকের পিটুনীতে ঘরজামাই দুলাভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।  নিহত মো. আনোয়ার (৪০) নাটোরের লালপুর থানাধীন গোপালপুর গ্রামের মতিন আহমদের পুত্র বলে  জানাগেছে।

রবিবার (২৩ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে উত্তর মাদার্সা মাহলুমা বাজার সংলগ্ন মৌলভী ওবায়দুর রহমানের বাড়িতে এ হত্যাকাণ্ডের পর বিক্ষুব্ধ জনতা নিহত আনোয়ারের তিন শ্যালককে পিটুনী দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।

রাতে হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর পাঠক ডট নিউজকে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আটক ৩ শ্যালক হল-ফার্ণিচার মিস্ত্রী জাহাঙ্গীর (২৪), আলমগীর (৩০) ও দর্জি নজরুল (৩২)।

স্থানীয়রা জানায়, পারিবারিক কলহের জেরে টেম্পু চালক আনোয়ার প্রায় সময় তার স্ত্রী মনি বেগমের উপর শাররীক ও মানষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। রবিবার বিকালেও আনোয়ার তার স্ত্রীকে মারধর করে। বোনের উপর স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে রাতে ৩ভাই একত্রিত হয়ে আনোয়ারকে কিল ঘুষি লাথি মেরে গুরুত্বর আহত করে।  এর মধ্যে শ্যালক জাহাঙ্গীর টর্চ লাইট দিয়ে আনোয়ারের মাথায় আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন বলে অভিযোগ করেন নিহতের দুই ছেলে।

গুরুত্বর আহত আনোয়ারকে তারা প্রথমে হাটহাজারী স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পরে অন্য একটি বেসরকারী ক্লিনিকে নিয়ে যাবার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত আনোয়ারের স্ত্রী মনি বেগম।

নিহত আনোয়ারের স্ত্রী মনি বেগম সাংবাদিকদের জানায়, ১৮ বছর আগে খালাতো ভাই আনোয়ারের সাথে তার বিয়ে হয়।  সংসারে ৩ পুত্র সন্তান রয়েছে। বিদেশে যাওয়ার জন্য তার স্বামী আনোয়ার প্রায় সময় মারধর করতো।  সে অন্য অন্য জায়গায় দ্বিতীয় বিয়েও করেছে।  এনিয়ে তাদের সংসারে ঝগড়া ফ্যাসাদ চলে আসছিল।  রাতে তার ভাইয়েরা স্বামী আনোয়ারকে কিল থাপ্পড় মারলে সে মারা যায় বলে স্বীকার করে মনি বেগম।

ওসি হাটহাজারী জানান, হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ৩ ভাইকে করা হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহত আনোয়ারের পরিবারে পক্ষ থেকে হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন