ছাত্রলীগ কর্তৃক অবাঞ্চিত হয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া দুই শিক্ষক
ছাত্রলীগের হুমকি, জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে চবি শিক্ষকের চিঠি

1
.

চবি প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সমাজতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষক মাইদুল ইসলাম কোটা সংস্কারের পক্ষে ফেসবুকে ‘উস্কানিমূলক’ পোস্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে ‘কটূক্তি’ করার অভিযোগে ছাত্রলীগের ‘হুমকিতে’ ক্যাম্পাস ছাড়ার পর এবার নিরাপত্তা চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে চিঠি পাঠিয়েছেন।

আজ ২৩ জুলাই (সোমবার) বিকালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর লিটন মিত্র চিঠি পাওয়ার বিষয়টি পাঠক ডট নিউজকে নিশ্চিত করেন।

কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের পক্ষে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার অভিযোগ এনে এ শিক্ষককে অবাঞ্ছিত ঘোষণার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগ। এতে বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আলমগীর টিপু স্বাক্ষর ছিল।

গত ১৭ জুলাই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সমাজতত্ত্ব বিভাগের মাইদুল ইসলাম এবং যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক খ. আলী আর রাজীকে চাকরিচ্যুত করার দাবি জানিয়ে উপাচার্যকে স্মারকলিপি দিয়েছিলেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তদন্তের উদ্যোগ নেওয়ার পর মাইদুল ইসলাম নিজের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনকে চিঠি পাঠান।

চিঠিতে তিনি লিখেছেন, গত ১৪ জুলাই এক ছাত্রলীগকর্মী তার ও পরিবারের ছবি পোস্ট করে ‘দেখে নেওয়ার হুমকি’ দিয়েছিলেন। এরপর আরও কয়েকজন তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে হুমকি দিতে থাকায় ১৫ জুলাই ক্যাম্পাসের বাসা ছেড়ে দেন তিনি।

গত ১৬ জুলাই ২০ থেকে ৩০ জন ছেলে সমাজতত্ব বিভাগে আমাকে খুঁজতে যায়। না পেয়ে বিভাগীয় সভাপতিকে নালিশ করেন। পরদিন বানোয়াট তথ্য দিয়ে আমাকে চাকরিচ্যুত করার জন্য উপাচার্যকে স্মারকলিপি দেয়।

তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, স্মারকলিপি দেওয়া টিপুর বিরুদ্ধে নিজ দলের নেতা ও সিআরবি’তে দরপত্র সন্ত্রাসে জোড়া খুনের অভিযোগ আছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর লিটন মিত্র শিক্ষক মাইদুলের চিঠি পাওয়ার কথা জানিয়ে পাঠক ডট নিউজকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ামানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

টিপুর স্মারকলিপি দেওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।