চবিতে মিরাক্কেল অভিনেতা রাসেলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

2
.

চবি প্রতিনিধিঃ 
প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘কটূক্তি’ করার অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ১১-১২সেশনের শিক্ষার্থী ও জি বাংলার জনপ্রিয় মিরাক্কেল অভিনেতা ইয়াকুব রাসেলকে মারধর করে গুরুতর আহত করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের একাংশ।

আজ ১২ আগস্ট (রবিবার) বিকাল তিনটার দিকে চবি জিরো পয়েন্ট চত্ত্বরে এ ঘটনা ঘটেছে।

মারধরের শিকার ইয়াকুব রাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি কলকাতার জি বাংলার জনপ্রিয় কমেডি শো মিরাক্কেল আক্কেল চ্যালেঞ্জার-৮ সেরা আটে ছিলেন।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করে ‘হাসি না’ লিখে স্ট্যাটাস দিয়েছে বলে ছাত্রলীগের অভিযোগ। মারধরকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের ৬৯ গ্রুপের সদস্যা ও সাবেক সহ-সভাপতি মনসুর আলমের অনুসারী।

মারধরের পর ইয়াকুবের বন্ধুরা তাকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যান। তার মাথায় গুরুতর জখম থাকায় পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. শুভাশীষ চৌধুরী শুভ জানান, আহত ইয়াকুব রাসেলের মাথায় বেল্টের বকলেসের আঘাতে গুরুতর জখম হয়েছে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

চমেক হাসপাতালে আহত রাসেলের সাথে থাকা ছোট ভাই সোহেল পাঠক ডট নিউজকে জানায়, ৪/৫ জন যুবক বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে কিরিচ দিয়ে কুপিয়ে এবং চামড়া বেল্ট দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। চিকিৎসকরা তাঁর মাথায় ৮টি সেলাই দিয়েছে।

মারধরের বিষয়টি স্বীকার করে চবি ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির জ্যৈষ্ঠ সহ-সভাপতি মনছুর আলম বলেন, আমাদের নেত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করা ছাত্রলীগ কর্মীরা ইয়াকুব রাসেলকে প্রতিহত করা হয়েছে। আমাদের কাছে আরো স্ক্রিনশট আছে। নেত্রীর বিষয়ে কোন আপোষ নাই। এটি চলমান প্রক্রিয়া। কটূক্তিকারীদের প্রতিহত করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর লিটন মিত্র জানান, আমরা বিষয়টি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

2 মন্তব্য

একটি মন্তব্য দিন