প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহণ আইনে যাত্রীদের প্রতিনিধিত্ব চাইঃ যাত্রী কল্যাণ সমিতি

0
.

দেশের সড়ক যোগাযোগ সেক্টরের প্রধানতম ষ্টেক হোল্ডার যাত্রীসাধারণের প্রতিনিধিত্ব না রেখে প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহণ আইন ২০১৮ পাস করা হলে এই আইন শুধুমাত্র পরিবহণ মালিক ও শ্রমিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করবে। দেশের ১৬ কোটি যাত্রী বঞ্চিত হবে দাবী করে এই আইনে যাত্রীসাধারণের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে গণতন্ত্রের মানসকন্যা বঙ্গবন্ধু তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ চেয়েছেন বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

আজ ১৫ সেপ্টেম্বর, শনিবার সকালে সদ্য কারামুক্ত বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোঃ মোজাম্মেল হক চৌধুরী এক বিবৃতিতে এই দাবী জানাই।

তিনি বলেন দেশের সড়ক যোগাযোগ সেক্টরের প্রধানতম স্টেক হোল্ডার (১) পরিবহণ মালিক (২) পরিবহণ শ্রমিক (৩) যাত্রী সাধারণ (৪) সরকার। দেশে সরকার নিবন্ধিত শক্তিশালী যাত্রী সংগঠন থাকার পরেও প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহণ আইনে যাত্রীসাধারণের প্রতিনিধিত্ব না রাখায় সারাদেশের যাত্রী সাধারণ বঞ্চিত হবে। সড়কে নৈরাজ্য, সড়ক দুর্ঘটনা, যাত্রী হয়রানী, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়সহ সড়কে নানান অন্যায্য ও অগ্রহনযোগ্য পরিস্থিতির শিকার হলে যাত্রীসাধারণ সঠিক ও গ্রহণযোগ্য প্রতিকার পাবে না। পুরোনো আইনে যাত্রীসাধারণের প্রতিনিধিত্ব না থাকায় পরিবহণ মালিক-শ্রমিক নেতাদের কাছে দেশের যাত্রীসাধারণ জিম্মি হয়ে আছে।

এহেন পরিস্থিতি থেকে মুক্তি দিতে দেশের গণপরিবহণ পরিচালনা, গণপরিবহণের ভাড়া নির্ধারণ, আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি, সড়ক নিরাপত্তা কমিটি, সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ তহবিল ট্রাস্টি বোর্ডসহ সকল ক্ষেত্রে মালিক-শ্রমিক সংগঠনের পাশাপাশি যাত্রী সংগঠনের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেন্ত্রী সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন