চবির ভর্তি পরিক্ষা আজ থেকে শুরু

0
,

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু আজ ২৭ অক্টোবর শনিবার শুরু হচ্ছে। এ উপলক্ষ্যে অতিরিক্ত নিরাপত্তা জোরদার, প্রশ্নপত্র ছাপানো এবং যাতায়াতের জন্য অতিরিক্ত ট্রেনসহ ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এ বছর আমরা সম্পূর্ণ নিজেদের প্রেস এবং নিজস্ব ডিভাইসের মাধ্যমে কোনো প্রকার ভুলত্রুটি ছাড়াই ভর্তি আবেদনের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছি এবং ভর্তি প্রক্রিয়ার বাকী কার্যক্রম গুলোও আমাদের নিজস্ব ডিভাইস দ্বারাই সম্পন্ন করা হবে।

তিনি বলেন, এ বছর দুই শিফটে পরীক্ষা হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বিগত বছরগুলোর চেয়ে অনেক গুণ বেশি। এক্ষেত্রে সাতশ’র বেশি পুলিশ, এনএসআই, ডিজিএফআই, গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব, রেলওয়ে পুলিশ এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের ব্যবস্থা থাকবে পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে।

.

প্রক্টর বলেন, নিরাপত্তার পাশাপাশি ক্যাম্পাসে যেকোনো ধরনের র‌্যাগিং ইস্যুতে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সতর্ক থাকা হবে প্রশ্ন ফাঁস কিংবা জালিয়াতির ব্যাপারেও। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে এ ধরণের অভিযোগ পাওয়া গেলে তার ছাত্রত্ব পর্যন্ত বাতিল করা হবে।

জানা যায়, এ বছর মানবিক কারণে পরীক্ষার্থীদের হলে থাকার ব্যবস্থা করলেও কোন অভিভাবককে হলে অবস্থান করার অনুমতি দেয়া হয়নি। এছাড়া ছাত্র সংগঠনগুলোকেও হেল্পডেক্স কিংবা ব্যানার লাগানো থেকে নিষেধ করা হয়েছে। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তিনটি হেল্প ডেস্ক থাকবে বলে জানান প্রক্টর।

অন্যদিকে যানবাহনের ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নম্বর গেইট দিয়ে প্রবেশ করে জিরো পয়েন্ট থেকে হাতের ডান দিকের রাস্তা দিয়ে সেন্টার ফিল্ডে গিয়ে পার্কিং করবে। পরীক্ষা শেষে সেন্টার ফিল্ড থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর গেইট দিয়ে গাড়ি বের করতে হবে। সেক্ষেত্রে এক নম্বর গেইট দিয়ে পুনরায় বের হওয়ার সুযোগ থাকছে না। এছাড়া প্রথম শিফটে শিক্ষকদের বাসগুলো সকাল সাড়ে আটটার মধ্যে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করবে; যা দেড়টার আগে বের হতে পারবে না। এরপর একইভাবে দ্বিতীয় শিফটের কার্যক্রম শুরু হবে।

নিরাপত্তার ব্যাপারে প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী বলেন, এ বছর ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সবধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে গোপন ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে।

তিনি জানান, এ বছর ১ লাখ ৩৬ হাজার ২৪৭টি আবেদন জমা পড়ায় প্রতি আসনে লড়বে ২৮ জন।

এ বছর ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ‘এ’ ইউনিটে ৪৪ হাজার ৪৩১ জন ভর্তি পরীক্ষার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবে। ‘বি’ ইউনিটে ৩১ হাজার ৭৯০জন, বি-১ উপ ইউনিটে ১ হাজার ৮৮৪জন, ‘সি’ ইউনিটে ১১ হাজার ৪৩৯জন, ও ‘ডি’ ইউনিটে ৪৪ হাজার ৫৬৮জন এবং ডি-১ উপ-ইউনিটে ২ হাজার ১৩৫জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছে।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন