বোয়ালখালীরে কধুরখীল আরব টেন্ডল সড়ক
দুই দশকে এক ঝুঁড়ি মাটিও দেয়নি সড়কে, যাতায়াতে ভোগান্তি

0
.

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি :
চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার কধুরখীল ইউনিয়নের আরব টেন্ডল সড়ক। এ সড়ক দিয়ে শিক্ষার্থীসহ দুইশতাধিক পরিবারের নিত্য যাতায়াত। গত দুই দশকে এ সড়কটির সংস্কার হয়নি। এমনকি এক ঝুঁড়ি মাটি দেয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসী। বর্তমানে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়া সড়কটির উন্নয়নে সংশ্লিষ্টদের কাছে দাবি জানিয়েছেন তারা।

জানা গেছে, উপজেলার মধ্যম কধুরখীল ৫নং ওয়ার্ডের আরব টেন্ডল সড়ক দীর্ঘ ২০ বছর সংস্কার বিহীন অবস্থায় পড়ে থাকায় এখন চলাচল অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। সে সাথে রয়েছে খালের ভাঙন। প্রায় দুই কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সড়কটির কিছু অংশে ইট বিছানো রয়েছে, বাকি অংশ কাঁচা মাটির। কাঁচা অংশটি খালের ভাঙনে প্রায় বিলীন হওয়ার পথে। সড়কে দুইটি কালভার্টেরও প্রয়োজন রয়েছে। কালভার্টের জায়গায় এলাকাবাসী বাঁশ ও কাঠের সাঁকো তৈরি করে চলাচল করছেন।

.

স্থানীয় হারুনুর রশিদ, মো. আজিজুল হক, মো. ইসমাইল, মো. বদন হক, মো. ওসমান, আবুল কাসেম ও মো বাদল ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এতো দূর্ভোগের মধ্য দিয়ে রয়েছি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। মানুষের জীবনযাত্রার মান দিনদিন বাড়ছে। অথচ এ এলাকার মানুষের ভোগান্তি ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ, পায়ে হেঁটে চলাও এখন দায় হয়ে পড়েছে। কোনো সামাজিক, পারিবারিক অনুষ্ঠানের আয়োজনও করতে পারি না। দূর-দূরান্ত থেকে আসা মেহমানদের ভোগান্তি পোহাতে হয়। তারাও একবার আসলে দ্বিতীয়বার এমুখো হন না।

.

যাতায়াতকারী আবুল কাসেম ফকির বলেন, এ সড়কে দিয়ে স্কুল কলেজ মসজিদ মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীসহ হাট বাজার, অফিস আদালতে এলাকাবাসীর নিত্য যাতায়াত। বছরের পর বছর গেলেও এ সড়কে কেউই এক ঝুঁড়ি মাটিও দেয়নি।

কধুরখীল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইদ্রিস বলেন, আরব টেন্ডল সড়কের কাঁচা অংশটি খালের ভাঙনে প্রায় বিলীন হয়ে গেছে। কাঠ-বাঁশের তৈরি সাঁকো পাড় হতে গিয়ে পথচারীরা দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। দুইটি কালভার্ট নির্মাণও জরুরী। তবে এ কাজে বৃহৎ অংকের বাজেটের প্রয়োজন রয়েছে। যে অংশে ইট বিছানো রয়েছে তা সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন