নগর থেকে সীতাকুণ্ড পর্যন্ত তীব্র যানজট, চরম জনদূর্ভোগ

0
.

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকা সারাদেশে ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট শেষ হওয়ার পর আজ সকাল থেকে যান চলাচল শুরু হওয়ার পর ব্যস্ততম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ড অংশ থেকে চট্টগ্রাম নগরী পর্যন্ত তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) সকাল থেকে সীতাকুণ্ড অংশ থেকে নগরীর দেওয়ান হাট পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

নগরীর একেখান মোড় থেকে দেওয়ানহাট পর্যন্ত যান চলাচলে ধীর গতির কারণে এ যানজট সীতাকুণ্ডের বার আউলিয়া পর্যন্ত গিয়ে পৌছে। মহাসড়কে এ তীব্র যানজটের ফলে রাস্তায় হাজার হাজার গাড়ি আটকে পড়ে যার ফলে সকাল থেকে হাজারো মানুষের দূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। শত শত মানুষকে পায়ে হেঁটে গন্তব্য পৌছাতে দেখা যায়।

বারৈয়ারহাট-চট্টগ্রাম রোড চলাচলকারী উত্তরা পরিবহনের স্টাফ জানালেন দুপুর ১২ টায় বারৈয়ারহাট থেকে গাড়ি ছাড়লেও বিকাল ৪ টার পরও শহরে যেতে পারিনি।

স্থানীয় মিডিয়াকর্মী মামুনুর রশিদ মামুন বলেন, সকাল থেকেই ব্যস্ততম মহাসড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় ফলে হাজার হাজার মানুষের চরম দূর্ভোগের শিকার হতে হয়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ আহসান হাবীব বলেন, রাস্তায় মুলত কোন সমস্যা ছিলনা। দুইদিন গাড়ি বন্ধ থাকার কারণে গাড়ির চাপ কিছুুটা বেড়েছে। আর বন্দরের গাড়িগুলো ফোর্ট লিংক রোড দিয়ে প্রবেশ করতে গিয়ে কিছুটা ধীর গতির কারণে এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের টিম সারাদিন রাস্তায় কাজ করছে। খুব শীঘ্রই মহাসড়ক যান চলাচল স্বভাবিক হয়ে যাবে। এ রির্পোট লিখা পর্যন্ত ( রাত সাড়ে ৮ টা) ঢাকামূখী যান চলাচল স্বাভাবিক হলেও চট্টগ্রামমুখী যান চলাচলে ছিল ধীর গতির।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন