‘কেমন সন্দ্বীপ চাই’ আলোচকদের প্রশ্ন
এলাকার সমস্যার তুলে ধরলে জনপ্রতিধিরা অসন্তুষ্ট হন কেন?

0
.

আসন্ন জাতীয সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম জেলার সন্দ্বীপ সংসদীয় আসনের (চট্টগ্রাম-৩) প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে ভোটারদের মতামত প্রদনের লক্ষ্যে ’কেমন সন্দ্বীপ চাই’ নামের এক আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, জনপ্রতিনিধিদের কাছে নির্ভয়ে নিজদের চাওয়া পাওয়ার কথা বলতে হবে. তবেই যে কোন সমস্যার সঠিক সমাধান পাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে।

অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তেব্যে উপস্থিত সন্দ্বীপবাসীরা বলেন, এলাকার বিভিন্ন সমস্যার কথা বিভিন্ন মাধ্যমে তুলে ধরলে জনপ্রতিনিধিরা অসন্তুষ্ট হন। সেই কারণেও মানুষ সাধারনত মুখ খুলতে চাননা।

বক্তারা জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে বলেন, দেশের সংবিধান ও বিভিন্ন সংস্থার নিয়ম কানুন যথাযথভাবে জেনে নিলে জনগনের সেবা ও এলাকার টেকসই উন্নয়ন করা সহজ তবে।

শুক্রবার বিকাল চারটায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তন থেকে অনুষ্ঠানটি অনলাইনে লাইভ স্টিমিং (সরাসরি সম্প্রচার) করা হয়, যাতে যুক্ত হয়েছে পৃথীবির নানা প্রান্তে অবস্থান করা সন্দ্বীপের অধিবাসীরা। গত একমাস ধরে ফেসবুকে ’কেমন সন্দ্বীপ চাই’ প্রসঙ্গে বিশ্বের নানা প্রান্তে বসবাস করা সন্দ্বীপের মানুষরা জনপ্রতিনিধিদের কাছে নিজদের প্রত্যাশা জানিয়ে ভিডিও পোস্ট করেছেন। অনলাইনে পাওয়া এসব মতামতও তুলে ধরা হয়েছে উক্ত অনুষ্ঠানে।

দৈনিক সমকালের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সারোয়ার সুমনের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সহ- সভাপতি একেএম বেলায়েত হোসেন, লে:কর্ণেল (অব:) দিদারুল আলম বীর প্রতিক, আমরা সন্দ্বীপবাসীর প্রধান সমন্বয়ক ডাক্তার রফিকুল মাওলা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির, চট্টগ্রাম বন্দরের চীফ অডিটর রফিকুল আলম রেডিও টুডের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সালেহ নোমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শোয়েব উদ্দিন হায়দার, উত্তর সন্দ্বীপ কলেজের অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ালীগের উপদেষ্টা একেএম বেলায়েত হোসেন বলেন, প্রায় সময় দেখা যায় এলাকাবাসীরা নিজদের সমস্যা, ইচ্ছা অনিচ্ছা জনপ্রধিনিদের কাছে বলেননা অথবা বলার সাহস করেননা, এই পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে আসতে হবে। না হলে জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় সেবা পাওয়া যাবেনা।

তিনি আরো বলেন, আমাদের জনপ্রতিনিধিরা অনেক সময় সমস্যার কথা শুনতে পছন্দ করেননা। কেউ এলাকার সমস্যার কথা তুলে ধরলে তাদেরকে জনপ্রতিনিধিরা শত্রু ভাবাপন্ন মনে করেন। এই ধরনের জনপ্রতিনিধি রাষ্ট্্র, সমাজ এমনকি নিজের দলের জন্যও বোঝা।

ডাক্তার রফিকুল মাওলা বলেন, জনপ্রতিনিধিদের কাছে সাধারন মানুষের যাওয়ার সুযোগ একেবারেই নেই। তারা সব সময় নিজ দলের ভেতরেই বলয় তৈরী করে রাখেন। নিজস্ব বলয়ের নির্দিষ্ট নেতা-কর্মী ছাড়া অন্যদেরও সব সময় দূরে সরিয়ে রাখা হয়। এই পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে আসতে না পারলে সরকারের গৃহীত উন্নয়নের সুফল সাধারন মানুষের কাছে তেমন পৌছাবেনা।

অনুষ্ঠানে সন্দ্বীপের বিভিন্ন স্তরের মানুষরা বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও অনলাইনে পৃথীবির বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করা সন্দ্বীপের মানুষরা তাদের মতামত ও প্রত্যাশা তুলে ধরেন।

এতে সন্দ্বীপের নৌ যাতায়ত, সন্ত্রাস, মাদক সমস্যা সমাধানে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালানোর জন্য জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহবান জানানো হয়। এছাড়াও সন্দ্বীপের শিক্ষা ও চিকিৎসা সংকট দূর করারও জোর দাবি জানান বক্তারা।

একমাস ব্যাপি চালানো অনলাইন প্রচারনা এবং এই অনুষ্ঠানের প্রাপ্ত ভোটারদের মতামত আনুষ্ঠানিকভাবে সন্দ্বীপের আগামীর সংসদ সদস্য ও অনান্য জনপ্রতিনিধিদের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানান সঞ্চালক সারওয়ার সুমন।

কোন মন্তব্য নেই

একটি মন্তব্য দিন