নিউজিল্যান্ডে হামলায় বিশ্বনেতাদের নিন্দা, নিশ্চুপ ডোনাল্ড ট্রাম্প

0
ব্রেকিং নিউজ
  •                 
.

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে ভয়াবহ হামলায় বিভিন্ন দেশে তীব্র নিন্দা জানালেও নীরব রয়েছেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। জানিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতারা। পুলিশ জানিয়েছে, ওই হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত নিহত এবং আরও ২০ জনের বেশি মানুষ গুরুতর আহত হয়েছে।

শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় ক্রাইস্টচার্চের মসজিদ আল নুরে খ্রিস্টান সন্ত্রাসীর এলোপাতাড়ি গুলিতে ৪৯ জন শহীদ হন। আহত হয়েছেন প্রায় ৫০ জন মুসল্লি। নামাজরত এসব মুসল্লির ওপর হামলার অত্যন্ত ঘৃণাজনক বলে জানিয়েছেন মুসলিম নেতারা।

এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী জেসিনডা আর্ডার্ন ক্রাইস্টচার্চে হামলার ঘটনাকে নিউজিল্যান্ডের জন্য একটি অন্ধকার দিন উল্লেখ করে এই হামলাকে চরম এবং নজিরবিহীন সহিংসতা বলেছেন।

নিউজিল্যান্ডের ওই হামলার ঘটনায় বিশ্বজুড়ে তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রধান এ নিয়ে বিবৃতি দিয়ে সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। কিন্তু এমন ভয়াবহ নৃশংশতায়ও ব্যতিক্রম মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডেনাল্ড ট্রাম্প। এ বিষয়ে তাকে কোন বিবৃতি দিতে দেখা যায়নি।

হোয়াইট হাউসের অফিসিয়াল টুইটারেও এ বিষয়ে কোন বক্তব্য দেয়া হয়নি। তবে নিউজিল্যান্ডে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত স্কট ব্রাউন এক টুইটবার্তায় জানিয়েছেন, তিনি এই হামলার ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন।

এদিকে হামলাকারী খ্রিস্টান সন্ত্রাসী ব্রেন্টন দাবি করেছে সে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক। মুসলিমদের যে বরাবরই উগ্র।

শহীদদের প্রতি সমবেদনা ও হামলাকারী সন্ত্রাসীর প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়ে সবার আগে মুখ খুলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তায়্যিব এরদোগান। তিনি বলেন, বর্ণবাদ ও ইসলামবিদ্বেষ বেড়ে যাওয়ার সবচেয়ে নিকৃষ্ট উদাহরণ এই হামলা।

এরদোগান বলেন, মুসলমানদের বিরুদ্ধে শত্রুতা অলসভাবে দেখছে বিশ্ব। মুসলমানদের ব্যক্তিগতভাবে হয়রানির করা হত ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদের হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে সীমান্ত ছাড়িয়ে তা গণহত্যায় রূপ নিয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে খ্রিষ্টান সন্ত্রাসী কর্তৃক মসজিদে হামলার নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ডে এমন হামলার ঘটনায় আমি খুব মর্মাহত। আমি এর কঠোর নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা আগেও বলেছি সন্ত্রাসবাদের কোনো ধর্ম হয়না। আমি তাদের পরিবারের জন্য দোয়া করি।

নিরপরাধ বেসামরিক নাগরিকদের ওপর নির্বোধ সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানিয়েছে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এই বর্বর হত্যাকাণ্ডের পেছনে দায়ীদের বিচারের আওতায় আনার প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয়েছে।

নিউজিল্যান্ডে মুসল্লিদের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যার ঘটনাকে বেদনাদায়ক ও নৃশংস বলে উল্লেখ করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

ফিজির প্রধানমন্ত্রী ফ্যাঙ্ক বেইনিমারামা বলেছেন, নিউজিল্যান্ডে আমাদের ভাই-বোনদের প্রতি ফিজির জনগণের সমবেদনা। ওই হামলার ঘটনায় এক বা দু’জন ফিজির নাগরিক থাকতে পারেন বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেন, যখন ঘৃণা এবং সহিংসতা সবার শান্তি কেড়ে নিয়েছে, আজ নিউজিল্যান্ডের এমন দুঃসময়ে জনগণের পাশে আছে অস্ট্রেলিয়া। সবার মনোবল দৃঢ় রাখারও আহ্বান জানান তিনি।

ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি জানিয়েছেন, তিনি এমন হামলার তীব্র নিন্দা জানান। বিশেষ করে শুক্রবার জুম্মার নামাজের সময় এমন হামলার সমালোচনা করেছেন তিনি।

ক্রাইস্টচার্চে হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে নিউজিল্যান্ডের জনগণের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে।

হামলাকারী খ্রিস্টান সন্ত্রাসী ব্রেনটন ট্যারেন্ট উগ্রপন্থী এবং ট্রাম্পের সমর্থক। তার মধ্যে শান্তিকামী মুসলিমদের প্রতি জমে থাকা ঘৃণারই বহিপ্রকাশ নৃশংস এ হামলা।

কোন মন্তব্য নেই