চীনে রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ৪৭, আহত ৬৫০

0
ব্রেকিং নিউজ
  • *প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন

                    *প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন

.

চীনের পূর্বাঞ্চলে জিয়াংসু রাজ্যে একটি রাসায়নিক কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে ৪৭ জন নিহতের খবর পাওয়া গেছে। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন সাড়ে ৬০০ জনেরও অধিক।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে রাজ্যের ইয়াংছেনের চেনজিয়াং শিল্প এলাকার তিয়াংজয়ি কারখানায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সার তৈরির কারখানাটির অভ্যন্তরে বিস্ফোরণের পর আগুনের কুণ্ডলীর সৃষ্টি হয়ে ওই এলাকা ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। বিস্ফোরণের সময় ২ দশমিক ২ মাত্রার ভূকম্পন অনুভূত হয় বলে জানিয়েছে চীনের ভূমিকম্প জরিপ অধিদপ্তর।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ৬৪০ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ১৬টি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৩২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

.

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে দেখা যায়, কালো ধোঁয়ায় কারখানা ছেয়ে গেছে, আহতদের উদ্ধার করে নিয়ে আসা হচ্ছে এবং ভবনগুলো দেবে গেছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিস্ফোরণ এতটাই শক্তিশালী ছিল যে কারখানার ভবন ধসে পড়ে। এবং এর মধ্যে আটকা পড়েন কারখানার শ্রমিকরা। বিস্ফোরণে একটি কিন্ডারগার্ডেনের শিশুরাও আহত হয়েছেন।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং আহতদের উদ্ধার করেন বলে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়েছে।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এখন রাষ্ট্রীয় সফরে ইতালিতে রয়েছেন। তিনি এই দুর্ঘটনায় আহতদের চিকিৎসায় সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন এবং ওই এলাকার ‘সামাজিক স্থিতিশীল পরিবেশ বজায় রাখার’ ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।

শি জিনপিং আশা প্রকাশ করেন, তাঁর সরকার অবশ্যই এ ধরনের দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে এবং এই দুর্ঘটনার কারণ খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

দুর্বল কাঠামো ও পরিসেবাগত কারণে চীনে এ ধরনের দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে। এর আগে ২০১৫ সালে চীনের উত্তরাঞ্চলে ভয়াবহ দুটি বিস্ফোরণে প্রায় ১৬০ জন নিহত হন।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইয়াংছেন এলাকার তিয়াংজয়ি কারখানাটি ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এর পর থেকে বিভিন্ন সময়ে বায়ুদূষণ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় অবহেলার কারণে অন্তত ছয়বার জরিমানা গুনেছে।

কোন মন্তব্য নেই