৭৩ বছর বয়সে জীবনাবসান

আবদুস সামাদ থেকে যেভাবে টেলি সামাদ

0
.

অত্যন্ত শক্তিশালী ও জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা টেলিসামাদ। ১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন তিনি। ৪০ বছরের ক্যারিয়ারে তিনি অভিনয় করেছেন ৬০০টি ছবিতে। গত ৮ জানুয়ারি ছিল এই গুণী অভিনেতার ৭৩ তম জন্মদিন। ১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি তিনি মুন্সিগঞ্জের নওগাঁও এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন।

টেলিসামাদ পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারশুকলা বিভাগে। ‘কার বউ’ তার অভিনীত প্রথম ছবি হলেও দর্শকদের কাছে তিনি পরিচিতি পান আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ ছবির মাধ্যমে। সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা টেলিসামাদের সংগীতেও রয়েছে সমান পারদর্শিতা। ‘মনা পাগলা’ ছবির সংগীত পরিচালনা করেছেন তিনি। এছাড়া ৫০টিরও বেশি ছবিতে তিনি গানও গেয়েছেন।

টেলিসামাদের আসল নাম আবদুস সামাদ। বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) ক্যামেরাম্যান মোস্তফা মামুন তার আবদুস সামাদ বাদ দিয়ে টেলিসামাদ নামটা দিয়েছিলেন। সেই থেকে তাকে সবাই টেলিসামাদ নামেই চেনে।

সত্তরের দশক থেকে তাকে পর্দায় দেখেছেন দর্শকরা। এ যাবৎ অসংখ্য চলচ্চিত্র–নাটকে নানা ধরনের চরিত্রে তার দুর্দান্ত অভিনয় দর্শকের মনে দাগ কেটে আছে দারুণভাবে। নিজের অভিনয় শৈলি দিয়ে দর্শকদের বিনোদন ও হাসিতে সারা ক্ষণ মাতিয়ে রাখতেন টেলিসামাদ। একসময় কমেডিয়ান বললেই চলে আসত তার নাম। সমানতালে অভিনয় করেছেন সিনেমায়, টেলিভিশনে। পেয়েছেন তুমুল জনপ্রিয়তা।

চল্লিশ বছর ধরে যিনি সবাইকে হাসিয়েছেন, জীবন সায়াহ্নে এসে অভাব, জরা, ক্লান্তি আর একাকীত্ব মিলিয়ে দারুন অবসাদগ্রস্থ সেই কৌতুক সম্রাটের জীবন প্রদীপ নিভে গেছে। ২০১৫ সালে তার অভিনীত সর্বশেষ ছবি ‘জিরো ডিগ্রী’ মুক্তি পায়।

আজ শনিবার (০৬ এপ্রিল) দুপুরে এই অভিনেতা ৭৩ বছর বয়সে জীবনাবসান ঘটেছে।

কোন মন্তব্য নেই