মা দিবসে ভাবনা
“আমার মা পৃথিবীর সেরা মা”

0
শাহনুর সুলতানা লুনা

মা আমার সেরা মা। আমার প্রাণ ভ্রমরা। আমি আমার মায়ের ভালোবাসায় পরিপূর্ণ সিক্ত। মায়ের মুখ দেখলে আমার মন ভাল হয়ে যায়,সব দু:খ কষ্ট চলে যায়। আমার মা পৃথিবীর সেরা মা। আমি এবং আমার মা আমরা ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছি।

আমি সব বিষয়ে আমার মায়ের সাথে শেয়ার করি, মা আমাকে সঠিক পরামর্শ দেয় ,আমার বিপদে ঝাপিয়ে পড়ে। আমার মা উনার চার সন্তানকে পরম মমতা আর ভালোবাসায় বড় করেছে। মা আমার কত সুন্দর।আমার মায়ের মন উদার,আমার মা অনেক সংগ্রাম করে আমাদের চার ভাই বোনকে বড় করেছে।

.

আমার মায়ের শাসন ছিল খুব কড়া। আমাদেরকে কিভাবে সঠিকপথে রেখে মানুষ করা যায় সেইভাবে করেছে, খন্ড খন্ড সময় আমরা গ্রামে ছিলাম। গ্রামে সবার চেয়ে আলাদা করে আমাদেরকে বড় করেছে। দীর্ঘ সময় আমরা শহরে ছিলাম,আছি এখনো। আমার বাবা মায়ের সংসারটা খুব সুখের ছিল। কোনদিন উনাদের মাঝে ঝগড়া দেখি নাই। দুজন দুজনকে খুব শ্রদ্ধা করতো। আর উনাদের ভালোবাসা সব সময় অটুট ছিল। আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ।

আমরা যখন স্কুলে যেতাম,আমাদের স্কুলটা অনেক দুরে ছিল। আমরা স্কুল থেকে আসতে দেরী হলে মায়ের মন ছটফট করতো, ব্যাকুল হয়ে যেত। মা ঘর থেকে বের হয়ে পুকুরের কোনায় গিয়ে গাছের পাশে দাড়ায় থাকতো। অনেক দুর থেকে যখন আমাদেরকে দেখা যেত তখন আমার মায়ের মনে স্বস্তি আসতো আমরা আসলে আমাদেরকে জড়ায় ধরে ঘরে নিয়ে যেত।

মায়ের মুখে হাসি ফুটতো এই স্মৃতি এই দৃশ্য জীবনে কখনো আমি ভুলতে পারবো না। এই রকম আরো কত স্মৃতি। আমার সব সময় মায়ের সব স্মৃতি মনে পড়ে। মা আমাদের জন্ম থেকে এখনো পর্যন্ত স্ইে রকম ভালোবাসে আমার মা পৃথিবীর সেরা মা। কোনদিন ছেলেমেয়েদের কাছে কিছু চাইনি,এখনো পর্যন্ত ছেলেমেয়েরা কিভাবে সুখে থাকবে সেই চিন্তায় থাকে।আমার মা আমার চলার পথের সঠিক নির্দেশক।

আমার মায়ের সাথে চট্টগ্রাম শহরে আমি কত ঘুরেছি বেড়িয়েছি, রেষ্টুরেন্টে খেয়েছি কত বার, মার সাথে মজা করেছি, এমনকি রাতের ২টা ৩টা পর্যন্ত গল্প করি,পুরনো কথা বলে মা, আমরা দুজনে হাসি, আমার মা নিজের মনে কষ্ট পেলেও কষ্ট দেখাইনি যদি আমি কষ্ট পাই। মা আমাকে ছেড়ে কোথাও গেলে আমার এক মুহুর্ত ভাল লাগে না।

মনে হয় চট্রগ্রাম শহর খালি হয়ে গেছে।মাকে আমি ভীষন ভীষন ভালোবাসি। আমার মা অনেক বেশী উদার মনের মানুষ, অল্পতেই সন্তুষ্টি, ছবরী, আশাবাদী, বুদ্বিমতি, কর্মঠ, দক্ষ,সততা এবং সব দিক দিয়ে সতর্ক। মা আমার সব সময় চোখের সামনে ভেসে থাকে যেখানেই যাই না কেন।

এখনো আমার বাসায় যখন মা থাকে ৩য় তলার সিড়ি দিয়ে গ্লাসের ঐ দিকে গিয়ে দাড়াই থাকে অফিস থেকে আমার আসার সময় যখন হয়। আমি রাস্তা থেকে যখন দেখি আমার মা দাড়িয়ে আছে তখন আমার সারা দিনের সব ক্লান্তি দুর হয়ে যায়। আমি এত ভাগ্যবান এরকম একজন মা পেয়েছি। মা হচেছ অনেক অনেক বড় উচু স্থানের মানুষ। মা দিবসে আমার এই সামান্য লেখা দিয়ে শেষ করা যাবে না।

মা তো জীবনের সেরা সম্পদ। আল্লাহতায়ালার কাছে দোয়া করি আমার মাকে আল্লাহ যেন সুস্থ রাখে, দীর্ঘায়ু করে।

লেখকঃ শাহনুর সুলতানা লুনা
কর্মজীবি নারী, ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংক লিঃ

কোন মন্তব্য নেই