শাম্মী তুলতুলের রম্য গল্প
ক্রিকেট খেলা না রকেট খেলা

1
শাম্মী তুলতুল।

ক্রিকেট খেলা চেনেনা না এমন মানুষ পাওয়া বিরল।কিন্তু চল্লিশ বছরের হাবলু মাষ্টার মানুষকে অবাক করে দিলেন। তার ভাষ্য হচ্ছে এই জীবনে তিনি ক্রিকেট খেলা দেখেননি। খেলাটি কিভাবে খেলে তাও তিনি জানেন না। এই খবর পুরো হাবলু মাষ্টারের গ্রামে ছড়িয়ে পড়ল। যেখানে ক্রিকেট খেলা সব মানুষের মুখে মুখে, ছোট থেকে বুড়ো সবাই জানে,সেখানে হাবলু মাষ্টার জানেই না এইটা কি খেলা?

এমন একটা লোকের খোঁজ পেয়ে চিচিংঘা ক্রীড়া সংঘের ক্রিকেট কোচ রমিজ চৌধুরী খুবই দুঃখ পেলেন। কেননা বর্তমানে ক্রিকেট বিশ্বের একটি জনপ্রিয় খেলা। কেউ যদি বলে ক্রিকেট খেলা কি জানি না তা যে কত দুঃখের ব্যাপার বিশেষ করে ক্রিকেট কোচই অনুভব করতে পারবেন। আর তাই কোচ হাবলু মাষ্টারকে ডেকে পাঠালেন ক্লাবের মাঠে। সেখানে স্থানীয় দুই দলের খেলা চলছিল।

কোচ মাষ্টারের সাথে অনেক কথা বললেন,

শেষে তাকে খেলা বোঝার জন্য মাঠের কর্নারে দাড়া করালেন।কোচ বললেন, যে খেলাটি চলছে তার নাম ক্রিকেট খেলা। এই খেলার নিয়ম হল দুই দলের একদল ব্যাট করবে আরেক দলের একজন খেলোয়াড় দূর থেকে বল ছুঁড়ে মারবেন। দুই দলে এগার জন করে খেলোয়াড় থাকবে।
মুহুর্তে হাবলু মাষ্টার বলে উঠলেন, কিন্তু এখানে তো দেখছি মাত্র তের জন।

কোচ তখন বললেন আরে বাবা আগে একদল টসে জিতে ব্যাট করবেন,তাকে বলে ব্যাটসম্যান। অন্য দলের একজন বল ছুঁড়ে মারবেন। তাকে বোলার বলে। আর যিনি ব্যাটসম্যানের পিছনে আছেন তিনি উইকেট কিপার। কোচ আরো বোঝায় হাবলু মাষ্টারকে, মাঠের চারিদিকে যে সাদা চকের দাগ দেখছেন তাতে বল গিয়ে লাগলে হবে চার রান। আর বল যদি মাঠের বাইরে চলে যায় হবে ছয় রান। যাকে সবাই ছক্কা বলে। আবার কোচ কিছু বলবেন, এমন সময় দৌড়ে খেলোয়াড়রা রান নিলো। তাই দেখে হাবলু মাষ্টার বলে উঠলেন চমৎকারতো, এখানে দৌড় প্রতিযোগিতারও ব্যবস্থা আছে। প্রতিযোগিতা থাকায় খেলাটা দারুন লাগছে। যে যার আগে দৌড়াতে পারে।

কোচ রমিজ চৌধুরী বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে গেলেন। সেই মুহুর্তে একজন আউট হলেন।

হাবলু মাষ্টার আবার চেঁচিয়ে বললনে, দেখেন দেখেন পিছনে সাদা পোষাক আর মাথায় টুপি পড়া লোকটা উপরে দর্শকদের আঙ্গুল দেখিয়ে চুপ থাকতে বলছেন।

এবার কোচ বিরক্ত হয়ে বললেন, দেখুন মাষ্টার সাহেব সাদা কাপড় পড়া লোকটা দর্শকদের আঙ্গুল দেখিয়ে চুপ থাকতে বলছেন না, উনি হলনে আম্পায়ার। খেলোয়াড় ব্যাট করে রান নেওয়ার সময় অপর পক্ষের বলে আউট হলে আম্পায়ার এভাবে হাত তুলেন।
কথা শেষ হতে না হতেই হাবলু মাষ্টারের মাথার উপর দিয়ে বল চলে গেল এক ব্যাটিংয়ে মাঠের বাইরে আকাশে। তখন মাষ্টার বললেন, কোচ সাহেব আপনি না বললেন, মাঠের বাইরে গেলে ছয় রান। কিন্তু এ বল তো রকেট গতিতে উপরে আকাশে উঠে গেল। এটাতো ছয় এর চেয়ে বেশী রান হবে।

উহ,

কি হলো ভাই,

কোচ হাঁটু গেঁড়ে মাঠে বসে গেলেন, আমাকে মাফ করবেন। আপনাকে বোঝানোর ক্ষমতা আমার নেই। আপনি সব জান্তা। সব বিষয়ে মাষ্টার।

এবার হাবলু মাষ্টার চোখ মুখ কুচকে বিরক্ত হয়ে বলেন, আমাকে আর বোঝাতে হবে না আমি সব বুঝে গেছি। দৌড় দিয়ে বল ধরা যায় , দৌড়ে দৌড়ে রান নেয়া যায় । আর আকাশে বল রকেটের মত উঠে যায়। তাহলে এ খেলার নাম ক্রিকেট খেলা নয়, রকেট খেলা। কারণ এই খেলায় সবকিছু রকেটের মতো ফার্স্ট।

প্রথম মন্তব্য