কর্মক্ষেত্রে ঝক্কি কমানোর উপায়

0
.

দুশ্চিন্তা এবং ধকল আমাদের প্রত্যেকের জীবনের সঙ্গে যেন অঙ্গাঙ্গিভাবে মিশে গেছে। পেশাদার ও কর্মঠ ব্যক্তিরাও প্রতিনিয়ত মাইগ্রেন, বদহজম, ইনসমনিয়া এবং হার্টের অসুখে ভোগেন। কিন্তু এগুলোকে যত জীবনের অংশ বানাবেন, তত আপনার জীবনীশক্তি কমতে থাকবে। তবে কিছু নিয়ম অনুসরণ করলে সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

মেডিটেশন দৈনিক প্রথায় পরিণত করুন
বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, দৈনিক মেডিটেশন কিংবা ধ্যান করলে আপনার মানসিক ও শারীরিক ধকল কমে যাবে কয়েকগুণ। প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে উঠে, অফিসে কাজের ফাঁকে কিংবা রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে চটজলদি মেডিটেশন অনুশীলন করতে পারেন। আপনার জীবনে অস্বাভাবিক পরিবর্তন আসবে।

এক কথার মানুষ হোন
বস কিংবা সহকর্মীদের কাছে এক কথার মানুষ হোন। আপনি কোনো কাজ করে দেওয়ার কথা বললে সেটি পরিপূর্ণভাবে শেষ করার প্রতি মনোনিবেশ করুন। কিন্তু আপনার কর্মক্ষমতার বাইরে হয়ে যায়, এমন কোনো কাজের করার কথা দেওয়ার দরকার নেই।

বিরতির সময়গুলো ভালোমত ব্যবহার করুন
খুব ব্যস্ততম কিছু মুহূর্ত পার করার পর সামান্য বিরতি আমাদের ফুরফুরে ও সতেজ করে তোলে। সেজন্য বিরতির সময়গুলো ভালোমত ব্যবহার করুন। এসময় শুধু শুধু সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যয় না করে সহকর্মীদের সঙ্গে কথাবার্তা বলুন, হালকা কোনো খাবার খান কিংবা চায়ের কাপে চুমুক দিতে পারেন।

পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করুন
সপ্তাহের শুরুতে কিংবা ছুটির দিনের রাতেই পরিকল্পনা করে রাখুন আগামী এক সপ্তাহ কী কী কাজ করবেন। এতে আপনি অধিক কর্মোদ্যমী হয়ে উঠবেন। ভেতরে আলাদা এক ধরনের শক্তি বোধ করবেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী কোন কাজ আগে এবং কোন কাজ শেষে করবেন, সেটিও চিহ্নিত করে রাখুন।

নেতিবাচক মানুষ এড়িয়ে চলুন
জীবনে চলার পথে কিছু নেতিবাচক এবং অযাচিত মানুষ আপনি পাবেনই। বুদ্ধির সঙ্গে তাদের এড়িয়ে চললে তবেই সাফল্যের পথে অগ্রসর হতে পারবেন, অন্যথায় নয়। এমন মানুষদের কখনও আশপাশে ভিড়তে দেবেন না। তাতে আপনিই লাভবান হবেন।

কোন মন্তব্য নেই