টাকা বাঁচানোর সহজ উপায়

0
.

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যেকের দায়িত্বও বেড়ে যায়। দৈনন্দিন জীবনের খরচ মেটাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। আবার অনেক সময় অপ্রয়োজনীয় খাতে টাকা খরচ হয়ে যায়। খুব প্রয়োজনের সময় দেখা যায় হাতে কোনো টাকা নেয়। তাই ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেই অল্প অল্প করে টাকা জমানোর অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। আসুন জেনে নিই অপচয় কমানোর কয়েকটি উপায়।

খরচ নির্ধারণ করুন
দিনের খরচের হিসাব আপনি মোবাইল ফোনেই রাখতে পারেন। শুধু খরচের হিসাব রাখা একটি অ্যাপস ডাউনলোড করে নিলেই হলো। আপনি যদি তা না পারেন তাহলে লিখে রাখার অভ্যাস করুন। আপনি যত বেশি লিখে রাখবেন আপনার খরচ তালিকা থেকে অপ্রয়োজনীয় বিষয়গুলো তত বেশি বাদ পড়বে।

মাসিক হিসাব রাখুন
আমরা খুব কম জনই মাস শেষে খরচের হিসাব নিয়ে বসি। এক ঘণ্টা সময় বের করে বসুন। কোথায় কত খরচ হলো, কিভাবে হলো খেয়াল করুন। কিসে বেশি খরচ হলো কিংবা আগামী মাসে কোন খরচটা কম লাগবে এসব নোট করে রাখুন।

পরিবর্তন অসম্ভব নয়
আপনি হঠাৎ ৫০০ টাকা খুঁজে পেলেন যা আপনি ভুলে গিয়েছিলেন। খুশিমনে সেটি খরচ করে ফেলবেন না। এটি এখনও আপনার টাকা, উপহার নয়। তাই জমা রেখে দিন।

হাত খুলে খরচ বন্ধ করুন
আপনি যখন পার্টিতে যাবেন তখন একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বাজেট রাখুন। বাজেটের বেশি যাতে খরচ না হয় তা খেয়াল রাখুন। বেশি খরচ হলে পরের পার্টির বাজেট কমিয়ে দিন। আনন্দ উদযাপন করবেন মানে এই নয় আপনার বাজেটের দিকে কোনো খেয়াল থাকবে না।

বড় কেনাকাটায় সময় নিন
আপনার নতুন আসবাবপত্র দরকার। কিন্তু তার মানে এই নয় আপনার যেদিন নতুন আসবাবের কথা মনে হলো ওইদিনই সেটা কিনে ফেলবেন। দুয়েকটা দোকান ঘুরে দেখুন, অনলাইনে খুঁজুন, বন্ধু ও পরিবারের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নিন। এতে সময় বেশি লাগবে কিন্তু নিশ্চিতভাবে আপনার খরচ বাঁচাবে।

ফিক্সড ডিপোজিট করুন
কি পরিমাণ অর্থ আপনি রাখছেন সেটা ব্যাপার না, ব্যাপার হলো আপনি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা সেভ করছেন। আপনার প্রয়োজনের সময় এটি অনেক কাজে দেবে।

ধার দেওয়ার আগে ভাবুন
সব বন্ধুকে ধার দিতে যাবেন না। অনেকেই এটা করেন এবং এর শেষটা ভালো হয় না। আপনার বন্ধুর জরুরি প্রয়োজনে আপনি সাহায্য করবেন। কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিচক্ষণ হোন। আপনি নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার মতো আগে সমর্থ হোন তখন ধার দিন। আগে নিজে বাঁচুন।

কোন মন্তব্য নেই