ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটলে জালিম সরকার টিকবে না : রুমিন ফারহানা

1
.

বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এমপি বলেছেন, সরকারের নানামুখি অত্যাচারের মুখে দলটি দিনদিন আরো বেশী শক্তিশালী হচ্ছে । বিগত ১০ বছর ধরে দলটির নেতাকর্মীরা ভয়াবহ নির্যাতন ও নিপীড়ন সহ্য করে যাচ্ছে। নির্যাতনের স্টিমরোলার উপেক্ষা করেও নেতাকর্মীরা বাঁধভাঙ্গা স্রোতের মত আমাদের ডাকে সাড়া দিচ্ছে।

তিনি বলেন, নির্যাতিত মানুষের যে ঐক্য আমি আজকে বিএনপির মাঝে দেখছি; এই ঐক্যই বিএনপিকে জনগণের কাছে আরো গ্রহণযোগ্য করে তুলছে। ভবিষ্যতে দেশের জনগণ বিএনপিকেই ক্ষমতায় বসাবে ইনশাআল্লাহ। বৃহম্পতিবার দুপুরে ঢাকা থেকে সরাইলে যাবার পথে আশুগঞ্জের হোটেল উজানভাটিতে যাত্রা বিরতি কালে সাংবাদকিদের সাথে তিনি এসব কথা বলেন।

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেন, আমি সংসদের একটিমাত্র অধিবেশন পেয়েছি। এই অধিবেশন চলাকালে আমি আমার নেত্রী, তিনবারের সফল সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিসহ সকল নেতাকর্মীর সমস্যা নিয়ে কথা বলেছি। ভবিষ্যতে আরো বলব। তিনি আরো বলেন, সরকারের অব্যাহত অত্যাচার ও নির্যাতনের ফলে জনগণের মাঝে যে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে যেদিন সে ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটবে সেদিন জালিম সরকার আর টিকে থাকতে পারবে না।

এর আগে বিএনপির সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে ভৈরব টোল প্লাজা থেকে একটি বিশাল মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা সহকারে বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা আশুগঞ্জে নিয়ে আসেন। এসময় স্থানীয় হোটেল উজানভাটিতে তাকে দলীয় নেতাকর্মীরা ফুলের তোড়া দিয়ে শুভচ্ছো জানান।

হোটেল উজানভাটির হলরুমে তিনি নেতাকর্মীদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এসময় আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ডাক্তার ইদ্রিছ হাসান, যুগ্ম-সম্পাদক নুর আলম, প্রচার সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান, আশুগঞ্জ উপজেলা যুবদলের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি মোঃ ফায়জুর রহমান, উপজেলা জিয়া পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আবু আব্দুল্লাহ, যুবদল নেতা রোজোয়ান রাসেল, মোঃ জসিম উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা মোঃ তোফাজ্জল, হিমেল, মোঃ শামীম, রিফাতুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা সহকারে তাকে সরাইল পৌঁছিয়ে দেন।

প্রথম মন্তব্য

  1. বিএনপির ভাবছে বাংলাদেশের সাধারন জনতা বিএনপির সাথে রাজপথে নেমে এসে এক ধরনের গণঅভ্যুত্থান সৃষ্টি করে বিএনপিকে ক্ষমতায় আনবে। অবাক করার মতো বিষয় হলো বিএনপিকে বাংলাদেশের জনতা ২০০৮ সালের নির্বাচনে কিভাবে ভোট না দেওয়ার মাধ্যমে বিতাড়িত করেছিল ক্ষমতা থেকে তা বিএনপি কি ভুলে গিয়েছ্র নাকি? তাই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ কখনো ঘটবে না এই বাংলাদেশের মাটিতে যা খুব দেখানোর তা বিএনপিকে দেখানো হয়েছে জনতার পক্ষ থেকে ২০০৮ সালেই।