কাশ্মীর ভাঙলেও ভাঙছে না ক্রিকেট বোর্ড!

0
.

গত সোমবার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে রাজ্যটিকে ছোট দুই ভাগে ভাগ করার সিদ্ধান্ত নেয় ভারতীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীরের সঙ্গে রাখা হয়েছে হিন্দু অধ্যুষিত জম্মুকে আর আলাদা করা হচ্ছে বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ লাদাখকে। তবে রাজ্য ভাগ হলেও জম্মু-কাশ্মীরের ক্রিকেট বোর্ড একই থাকছে।

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সমস্ত ঘরোয়া টুর্নামেন্টে কাশ্মীরের বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ লাদাখের ক্রিকেটাররা জম্মু-কাশ্মীরের হয়েই প্রতিনিধিত্ব করবেন। এমনটি জানিয়েছেন বিসিসিআইয়ের ক্রিকেট কমিটি অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটরসের প্রধান বিনোদ রাই। খবর ভারতীয় জনপ্রিয় দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার।

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা একটি অস্থায়ী সংস্থান (টেম্পোরারি প্রভিশন)। এ অনুচ্ছেদ বলে জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা ও বিশেষ স্বায়ত্তশাসন দেয়া হয়েছিল।

সংবিধানের অন্যান্য ধারা অন্য সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হলেও জম্মু-কাশ্মীরের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য হতো না।

কিন্তু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করায় জম্মু-কাশ্মীর ৩৭০ অনুচ্ছেদের বিশেষ অধিকার হারাচ্ছে। এ ছাড়াও হারাচ্ছে পূর্ণাঙ্গ রাজ্যের মর্যাদাও। ভেঙে দুইভাগ করা হচ্ছে। জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ দুটি আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে।

উদ্ভুত এই পরিস্থিতিতে ঘরোয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্টে লাদাখের ক্রিকেটাররা কোন্ দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন? এই প্রশ্নের জবাবে বিনোদ রাই বলেন, লাদাখের জন্য আলাদা স্টেট বডির কথা এখনও আমরা চিন্তা-ভাবনা করিনি। বিসিসিআইয়ের সব ঘরোয়া টুর্নামেন্টে লাদাখের ক্রিকেটাররা জম্মু-কাশ্মীরের হয়েই খেলবে।

লাদাখের কোনো ক্রিকেটার অবশ্য আজও পর্যন্ত জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্য দলে সুযোগ পাননি। ভবিষ্যতে লাদাখ অঞ্চল থেকে কোনো ক্রিকেটার উঠে এলে তাকে জম্মু-কাশ্মীরের হয়েই খেলানো হবে। চলতি বছরের ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে রঞ্জি ট্রফি।

সরকারের নতুন এই সিদ্ধান্তের ফলে উপত্যকায় কি ক্রিকেট আগের মতোই খেলা হবে? সংশয় সরিয়ে রাই বলেছেন, গত বছরে জম্মু-কাশ্মীর হোম ম্যাচগুলো খেলেছিল শ্রীনগরে। এ বারও শ্রীনগরেই হোম ম্যাচ খেলবে জম্মু-কাশ্মীর। উপত্যকায় খেলা নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

কোন মন্তব্য নেই