সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

গ্যাসের দাম বাড়াতে চালাকির আশ্রয় নিয়েছে সরকার

0
dru-1
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন সৈয়দ আবুল মকসুদ।

গ্যাসের দাম আরেক দফা বাড়ানো হলে জনজীবনে তার ক্ষতিকর প্রভাব পড়বে বলে মন্তব্য করেছে নাগরিক সমাজ।

শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন বক্তারা আরো বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনমতকে উপেক্ষা করা হয়েছে।

সৈয়দ আবুল মকসুদ জানান, জনগণকে বিপদে ফেলে সরকার রাজস্ব আয় বেশি দেখাতে গ্যাসের দাম বাড়াতে চাচ্ছে। দেশের মালিক জনগণ হলেও সরকার তা বিবেচনায় নিচ্ছেন না। এ ছাড়া বর্তমানে গ্যাসের যে দাম রয়েছে তা-ই বেশি। এমতাবস্থায় দাম বাড়ানোর চেষ্টাকে নাগরিক সমাজ উদ্বেগের সঙ্গে দেখছে। তাই গ্যাসের দাম না বাড়ানোর জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে বাসাবাড়িতে গ্যাসের সম্পূর্ণ অবচয় হয় অর্থমন্ত্রীর এমন বক্তব্যকে প্রতিবাদ জানিয়ে সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ানোর চেষ্টা সম্পূর্ণ অবৈধ।

এ সময় নাগরিক সমাজের পক্ষে ৭টি প্রস্তাব তুলে ধরেন সৈয়দ আবুল মকসুদ। প্রস্তাবগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, রাজস্ব বোর্ডের প্রজ্ঞাপন ২২৭নং এসআরও অনুযায়ী গ্যাসকে কর ও ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করা, গ্যাসের দাম না বাড়ানো, পেট্রোবাংলার আয়-ব্যয় খতিয়ে দেখতে অডিটের জন্য বিইআরসির উদ্যোগ গ্রহণ, পেট্রোবাংলার সার্ভিস চার্জ বিচারিক প্রক্রিয়ায় বিইআরসির মাধ্যমে নির্ধারণে আইনি বাধ্যবাধকতা আরোপ করা ইত্যাদি।

সংবাদ সম্মেলনে প্রফেসর এম সামসুল আলম জানান,গ্যাসের দাম বৃদ্ধি হলে সিএনজি চালিত যানবাহনের ভাড়া যেমন বাড়বে, তেমনি তেলে চলা যানের ভাড়াও বাড়ানোর সুযোগ নেয়া হবে।’ দেশে আবাসিক চুলার সংখ্যা ৩৪ লাখ ১৬ হাজার ৬৪৩টি। এর পেছনে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪ হাজার ১১৮ মিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাস খরচ হবে বলে সরকারি হিসাবে ধরা হয়েছে। অথচ প্রতি মাসে চুলাপ্রতি ৯২ ঘনমিটার হিসাবে খরচ হবে ৩ হাজার ৭৭২ মিলিয়ন ঘনমিটার। এ হিসাবে সরকার ৯.১৭ শতাংশ বেশি খরচ দেখিয়েছে। এ ছাড়া গণশুনানিতে বলা হয়েছে, চুলাপ্রতি মাসিক ৪২ ঘনমিটার হিসাবে বছরে ১ হাজার ৭২২ মিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাস খরচ হবে। এ হিসাবে ৬৩.৫২ শতাংশ বেশি খরচ দেখানো হয়েছে।

এম সামসুল আলম আরও জানান, ঢাকা ও চট্টগ্রামে প্রতিদিন ৩০০ মিলিয়ন ঘনমিটার গ্যাস চুরি হয় বলে গোয়েন্দা সংস্থার বরাত দিয়ে গণশুনানিতে উপস্থাপন করা হয়। যাতে এই সমস্যার প্রতিকার ছাড়া গ্যাসের দাম বৃদ্ধি হবে অযৌক্তিক ও অন্যায়। এ ছাড়া গণশুনানিতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব সঠিক ও যৌক্তিক প্রমাণিত না হওয়া সত্ত্বেও তা করার চেষ্টা চলছে। এমতাবস্থায় নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে গ্যাসের দাম না বাড়ানোর জন্য আহ্বান জানান তিনি।

কোন মন্তব্য নেই