এরশাদের আসনে উত্তাপহীন ভোট: দিনভর মাছ ধরায় ব্যস্ত ইসি

0
.

জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ (সদর) আসনে ভোটের দিন মাছ ধরায় ব্যস্ত গোটা নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

আজ শনিবার সকাল ৯টায় উপ-নির্বাচনে ভোট শুরু হলেও ভোটার উপস্থিতি ছিলো একেবারেই কম। নেই ক্ষমতাসীন-বিরোধী দলগুলোর প্রার্থী-সমর্থকদের তেমন উপস্থিতিও।

উত্তাপহীন এ নির্বাচনী পরিস্থিতির জন্য বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান তার কর্মী সমর্থকদের বাড়িতে ভোটের আগের রাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হানাকে দায়ী করেছেন। আর এরশাদপুত্র সাদ ইতোমধ্যে তার জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বলে বক্তব্য দিয়েছেন গণমাধ্যমে।

এ অবস্থায় ‘নেই কাজ তো খই ভাজ’ পরিস্থিতিতেই যেন পড়েছে ইসি। তাই মাছ শিকারে নেমে পড়েছে পুরো কমিশন!

দেখা যায়, শনিবার দুপুরের পর থেকেই কর্মচারীরা লেক চত্বর সাজাতে থাকেন। সেখানে আসে সোফা, চেয়ার ইত্যাদি। একটু পরই আনা হয় ছয়টি বরশি। ময়দার গুঁটি বানিয়ে তৈরি করা মাছের টোপ।

তিন-সোয়া তিনটার দিকে নির্বাচন ভবন থেকে নেমে আসেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, ইসি সচিব মো. আলমগীর, অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেছুর রহমানসহ অনেকে। লেক চত্বরে

ইসির লেকে বড়শি ফেলেই প্রথমে টোপ খাইয়ে মাছ তুলে আনেন সিইসি। অন্যরা যখন একটাও ধরতে পারেনি, সিইসি একাই ততক্ষণে তিনটি তুলে নিয়েছেন নিজের ঝুলিতে। কমিশনার শাহাদাত হোসেন, সচিব আলমগীর ততক্ষণে একটি করে মাছ আটকাতে পেরেছেন।

সিইসির বড়শিতে একটু পরপরই মাছ আটকে যাওয়ায় উচ্ছ্বাস প্রকাশে ব্যস্ত হয়ে পড়ে উপস্থিতি। অনেককে বলতে শোনা যায়-অভিজ্ঞতার একটা বিষয় আছে।

কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, প্রকৃত অর্থেই নির্বাচন নিয়ে কোনো চাপ বা দুশ্চিন্তা নেই। ভালো নির্বাচন হচ্ছে। তাই ছুটির দিনে কাজ করতে এসে কমিশন একটু আনন্দ খুঁজছে মাছ শিকারের মাঝে।

আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবন ও নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মাঝে একটা লেক তৈরি করা হয়েছে। ভেতরে আছে ফোয়ারাও। আর এতেই দেশি-বিদেশি নানা প্রজাতির মাছ চাষ করছে ইসি।

কোন মন্তব্য নেই